আমাদের প্রাণের বইমেলা

’চিত্র রঞ্জন সাহা নিজ উদ্যোগে কয়েক বছর এই বইমেলা চালিয়ে যান। তারপর ১৯৭৮ সাল থেকে বাংলা একাডেমি বইমেলা আয়োজনের উদ্যোগ নেয়।’
আমাদের প্রাণের বইমেলা

প্রতিনিধিত্বশীল ছবি

বইমেলা শব্দটি মনে হলেই, চোখের সামনে ভেসে উঠে সারি সারি স্টল। যেখানে বইয়ের সমাহার নিয়ে বসে থাকে এক একটি প্রকাশনী।

বইমেলা এমন একটি জায়গা যেখানে শিশু কিশোর থেকে শুরু করে বৃদ্ধরাও ভীড় জমাতে পছন্দ করেন।

বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় বইমেলা হলো বাংলা একাডেমি আয়োজিত ‘অমর একুশে বইমেলা’। এটি প্রতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাস জুড়ে বাংলা একাডেমির প্রাঙ্গণ ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুষ্ঠিত হয়।

এই বইমেলার ইতিহাস শুরু হয় ১৯৭২ সাল থেকে। প্রকাশক চিত্র রঞ্জন সাহা তখন বাংলা একাডেমির সামনে চট বিছিয়ে বই বিক্রি শুরু করেন। সে সময় বাংলা একাডেমির এই জায়গাটি পরিচিত ছিল বর্ধমান হাউস হিসেবে।

চিত্র রঞ্জন সাহা নিজ উদ্যোগে কয়েক বছর এই বইমেলা চালিয়ে যান। তারপর ১৯৭৮ সাল থেকে বাংলা একাডেমি বইমেলা আয়োজনের উদ্যোগ নেয়। বইমেলা ‘অমর একুশে বইমেলা’ নামটি লাভ করে ১৯৮৪ সালে।

মেলায় বড়দের পাশাপাশি শিশুদেরও কথাও মাথায় রাখেন আয়োজকরা। শিশুদের জন্য শিশুতোষ বইয়ের অনেক স্টল থাকে। মেলা চলাকালীন প্রতি শুক্র ও শনিবার সকালে শিশু প্রহরের আয়োজন থাকে।

সেখানে টেলিভিশন অনুষ্ঠান ‘সিসিমপুর’ এর চরিত্রগুলোর সঙ্গে দেখা হয় শিশুদের।

এত বছর পেরিয়ে বইমেলা এখন আমাদের প্রাণের মেলায় পরিণত হয়েছে।

প্রতিবেদকের বয়স:১৩। জেলা: নীলফামারী।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.

সর্বাধিক পঠিত

No stories found.