অন্য চোখে

শেখ আব্দুল্লাহ ইয়াছিন (১৫), চট্টগ্রাম

Published: 2018-10-13 18:54:44.0 BdST Updated: 2018-10-16 19:20:52.0 BdST

গত জুলাইয়ে রোমানিয়ায় অনুষ্ঠিত ৫৯তম আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডে আহমেদ জাওয়াদ চৌধুরী দেশের জন্য প্রথম স্বর্ণপদক করেছে। জাওয়াদ চট্টগ্রামের ক্যান্টনমেন্ট ইংলিশ স্কুল অ্যান্ড কলেজে পড়ছে। হ্যালোর শিশু সাংবাদিকের সঙ্গে কদিন আগেই আড্ডা হয় তার।

হ্যালো: কেমন আছেন?
জাওয়াদ: ভালো।

হ্যালো: বাংলাদেশের হয়ে প্রথম স্বর্ণ বিজয়ী হিসেবে আপনার অনুভূতি কেমন?

জাওয়াদ: ভাবতেই ভালো লাগে। কল্পনাও করতে পারিনি যে আমি এতদূর যেতে পারব আর দেশের জন্য স্বর্ণ পদক জিতব।  

হ্যালো: ম্যাথের প্রতি আগ্রহ জন্মাল কীভাবে?

জাওয়াদ: ধাঁধা থেকে মূলত গণিতের প্রতি আগ্রহটা জন্মায়।আর ম্যাথ অলিম্পিয়াড দেওয়ার পর বুঝলাম এখানে অনেক ইন্টারেস্টিং বিষয় আছে।

হ্যালো: সেই সময়ের কিছু গল্প শুনতে চাই।

জাওয়াদ: সেই সময়ের স্মৃতিগুলোর মধ্যে ক্যাম্পে থাকা সময়ের যে স্মৃতি সবচেয়ে বেশি মনে পড়ছে তা হলো বিকালটা। খুব মজা হতো। অনেক বন্ধু হয়েছে। একবার বন্ধুরা মিলে বিছানা থেকে কাঠ ভেঙে নিয়ে ব্যাট বানিয়ে ক্রিকেট খেলেছি।

হ্যালো: যাদের গণিতের প্রতি আগ্রহ আছে তাদের উদ্দেশ্য কী বলবেন?

জাওয়াদ: তাদের বলব তোমরা চেষ্টা চালিয়ে যাও। ব্যর্থ হলে মন খারাপ করো না, সফল হবার ফার্স্ট ধাপ  হলো ব্যর্থ হওয়া। আর ব্যর্থতা কাটিয়ে উঠতে পারলে তুমি সফল হবে।

হ্যালো: আমরা দেখি শিক্ষার্থীরা সাইন্স, ইংরেজি ও ম্যাথকে সবচেয়ে বেশি ভয় পায়। এ ভয় কাটাতে কী করা দরকার বলে আপনি মনে করেন?
জাওয়াদ: প্র্যাকটিস, প্র্যাকটিস এন্ড প্র্যাকটিস।

হ্যালো: গনিতে সাতটা সৃজনশীল নিয়ে শিক্ষার্থীদের হতাশার শেষ নেই। শিক্ষা ব্যবস্থার এ নিয়মটা নিয়ে কী কোনো অভিযোগ আছে?
জাওয়াদ : না, তবে আমাদের স্কুল, কলেজগুলো আমাদের গণিতের সঠিক কনসেপ্টটা দিতে পারে না। এতে কিছুটা পরিবর্তন আনা দরকার।

হ্যালো: ম্যাথ অলিম্পিয়াডে যাওয়া নিয়ে স্কুলের  কেমন সাহায্য পেয়েছেন?
জাওয়াদ : বলতে গেলে অনেকটা। তবে মডেল টেস্ট,স্পেশাল ক্লাস নিয়ে কিছুটা জটিলতায় পড়তে হয়েছিল।

হ্যালো: আগে মানুষ চিনত না। এখন অনেক মানুষ চেনে, একটু ছবি তুলতে চায় কিংবা কথা বলতে চায় ঠিক সে সময়টাতে আপনার কেমন লাগে?
জাওয়াদ: ভালো। আসলেই ভাবিই নাই, এত ভালোবাসা পাবো। ভালো লাগে এটা ভেবে যে মানুষ আমাকে দেখে ম্যাথের প্রতি আরো উৎসাহী হচ্ছে।

হ্যালো: কী করতে সবচেয়ে বেশি ভালোবাসেন?
জাওয়াদ: ম্যাথ করতে, বেশি বেশি বই পড়তে।

হ্যালো: পছন্দের লেখক কে?
জাওয়াদ: জাফর ইকবাল।

হ্যালো: এইচএসসি তো শেষ হলো এখন সামনের পরিকল্পনা কী?
জাওয়াদ: পড়ালেখার জন্য দেশের বাইরে যাওয়ার ইচ্ছা আছে। ম্যাথকে নিয়ে আরো এগিয়ে যেতে চাই।

হ্যালো: এ সাফল্যের পেছনে কার অবদান সবচেয়ে বেশি?
জাওয়াদ: আম্মুর।

হ্যালো: আব্বু না?
জাওয়াদ: আসলে সবার দোয়া আর  সাহায্য ছিল, তবে আম্মুর ক্রেডিট টা একটু বেশি কেননা আম্মুর সাপোর্টটা ছিল সবচেয়ে বেশি।

হ্যালো: ভালো থাকবেন।

জাওয়াদ: তুমিও ভালো থাকবে।

Print Friendly and PDF

সর্বাধিক পঠিত