আমার কথা

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক, ঢাকা

Published: 2018-08-05 17:38:58.0 BdST Updated: 2018-08-05 17:38:58.0 BdST

‘শিক্ষার্থীদের আন্দোলন।’ গত কয়েকদিন ধরেই এই কথাটির সাথে খুব পরিচিত হয়ে উঠেছি আমরা। খবরের কাগজ খুললেই দেখা যাচ্ছে, ‘সড়কে মানুষের মৃত্যু’, হঠাৎ ‘ধর্মঘটের’ কারণে দুর্ভোগে সাধারণ মানুষ,’ ‘রাস্তায় গাড়ি চলছে না, শিক্ষার্থীরা পুরো রাস্তা বন্ধ করে রেখেছে।’

কয়েকদিন ধরে এরকম নানা ধরনের কথায় অভ্যস্ত হয়ে উঠেছি আমরা। এই কয়েকদিনে কিছু কিছু ঘটনা বিষিয়ে তুলছে আমাদেরকে!

বর্তমানে আমাদের আশেপাশের অনেকেই রয়েছে, যারা শিক্ষার্থীদেরকে নিয়ে এমন মন্তব্য করছে, যা শুনলে তারা শিক্ষিত মানুষ কিনা প্রশ্ন করতে ইচ্ছে হয়! আমি হয়তো এখনো অনেক ছোট, তবে গর্ববোধ হয় এই কথাটা বলতে যে, বড়দের থেকে আমরা ছোটরা অনেক বেশি মানবিক। আমাদের দেশের বড় বড় নেতাকর্মী, বড় মাপের মানুষজন আর একটি ছোট্ট শিশু বা শিক্ষার্থীদের মধ্যে পার্থক্য হলো, আপনারা যারা বড় মাপের মানুষ, তাদের হয়েতো পেশাগত শক্তি অনেক বেশি, আপনারা চাইলেই দেশটাকে, দেশের মানুষগুলোকে আপনাদের হাতের মুঠোয় নিয়ে চলে আসতে পারেন। কিন্তু একটি শিশু? তারা কী এটা পারে? না, তারা এটা পারে না। আর তাদের মধ্যে কখনো এমন চিন্তাই আসে না। কারণ তারা ক্ষমতা ব্যবহার করে নয়, তারা জানে কী করে দেশের মানুষকে বুঝিয়ে, তাদের মধ্যে সচেতনতা তৈরি করা যায়, তাদেরকে কী করে একটি গাইডলাইন দেওয়া যায়।

গত কয়েকদিন ধরে মিরপুর, ধানমণ্ডি, উওরা, শাহাবাগ, ফার্মগেটসহ নানা জায়গায় শিক্ষার্থীরা তাদের আন্দোলন ও সড়কে তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু খুবই দুঃখজনক ব্যাপার হলো যদি দশটি গাড়িকে সড়কের মধ্যে লাইসেন্স আছে কিনা প্রশ্ন করা হয়, তাহলে দেখা যাচ্ছে যে, এর মধ্যে সাতটি গাড়িরই লাইসেন্স নাই।

তাহলে এতোদিন কী ঘটছিল আমাদের সড়কে? আমাদের বন্ধুদের সাথে যদি সড়কে এমন ঘটনা না ঘটত, তাহলে আমাদের কারোরই কী এ বিষয়ে টনক নড়তো? অবশ্যই না। শিক্ষার্থীদের এমন আন্দোলন দেখে অনেকেই বলেন, ‘যারা চলে যাওয়ার, তারা তো গেছেই, এসব করে কী কোনো লাভ হবে?’

আমাদের সমস্যাটা হলো আমরা কোনো ঘটনা ঘটলে, সেটিকে খুব তাড়াতাড়ি ভুলে যেতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। তাই আজ আমাদের এই অধ:পতন।

ছোটবেলায় শুনতাম পুলিশ আঙ্কেলদের কাছ থেকে নাকি সাধারণ মানুষেরা শেখে। পুলিশ আঙ্কেলরা নাকি খুব সৎ। তাদেরেকে নাকি সবসময় সৎ থাকতেই হয়। কিন্তু এখন বড় হওয়ার পর দেখছি ঠিক এর উল্টোটা। পুলিশ আঙ্কেলদেরই লাইসেন্স নাই, অথচ তারা নির্দ্বিধায় গাড়ি চালিয়ে বেড়াচ্ছেন!

এতোগুলো কথা বলার কারণ হলো বর্তমানে চারদিকে যা কিছু চলছে, তা দেখে আসলে নিজের মধ্যে কিছু প্রশ্ন জাগ্রত হয়েছে, প্রথমত, কোন পরিবেশে, কী ধরনের মানুষের সাথে বসবাস করছি আমি? এসব মানুষগুলোর মধ্যে আসলেই কী মানবতা বা নৈতিকতা বলতে কিছু আছে?

বড়দেরকে বলি কী, ছোটদের আর আপনাদের মধ্যে পার্থক্যটা এই জায়গায় যে, ছোটদের মধ্যে ‘একতাই বল’ রয়েছে। ছোটরা জানে কী করে একজনের পাশে দাঁড়াতে হয়, কী করে একজনের বিপদে এগিয়ে আসতে হয়। কিন্তু বড়রা? একটু ভেবে দেখুন তো!

 আমরা ছোট, মানি। তবে আমরা ছোট হয়েও অনেক বিষয় বুঝি, যেটা কিনা বড়রা বোঝে না। কিন্তু যখন আমরা বড়দেরকে তা বলতে যাই, তখন আমরা বেয়াদবে পরিণত হই। ‘বড় হয়ে আমার তোমার কাছ থেকে শিখতে হবে?’ এমন প্রশ্নেরও সম্মুখীন হই আমরা। অথচ আমাদের অপরাধটা কোথায়? ওই যে আমরা সঠিকটা ধরিয়ে দিতে চেয়েছিলাম!

যদি বেশি বলে ফেলি, তাহলে ক্ষমা করবেন। আপনাদের কাছে একটাই অনুরোধ, এমন কিছু করুন যাতে ছোট হয়ে আপনাদের কাছে শিক্ষাগ্রহণ করতে পারি।

Print Friendly and PDF

সর্বাধিক পঠিত