আমার কথা

মেহেদী হাসান (১৬), গাইবান্ধা

Published: 2018-07-11 14:47:00.0 BdST Updated: 2018-07-11 14:47:00.0 BdST

গাছ আমাদের অক্সিজেন দিয়ে, ছায়া দিয়ে, খাদ্য জুগিয়ে বাঁচিয়ে রেখেছে।

আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম কতটা জানে এই গাছ সম্পর্কে? ইট পাথরের বাক্সবন্দি জীবনে বেড়ে ওঠা শিশুদের মধ্যে গাছের প্রতি ভালোবাসা দিন দিন কমে যাচ্ছে।

শিশুদের সাথে গাছপালার বন্ধুত্ব গড়ে তুলতে হবে। শিশুদের চেনাতে হবে গাছ। এসব আমি প্রায়ই ভাবতাম।

তবে আমাদের জেলায় শিশু মনে গাছের প্রতি ভালোবাসা অন্যদের চেয়ে যে কম নয় বরং বেশি তা বোঝা গেল ক’দিন আগে গাইবান্ধা জেলা শহরে আয়োজিত ফলদ ও বনজ বৃক্ষমেলায় শিশুদের ভিড় দেখে।

ক্লাস আর কোচিং শেষে প্রতিদিনই শিক্ষার্থীদের মেলায় আগমন ছিল গাছের প্রতি তাদের ভালোবাসার পরিচায়ক। শুধু আসা যাওয়া নয় ঘুরে ঘুরে তারা দেখেছে ফুল ও ফল গাছের চারার সম্ভার, বিক্রেতাদের কাছে জানতে চেয়েছে গাছের দাম, নাম, দেশি-কি বিদেশি জাত কিনা এমনকি বৈজ্ঞানিক নামও। আমি তো অবাক এসব দেখে। আমার ধারণা ভুল! শিশুরা গাছ ভালোবাসে।

প্রতি বছরের মতো এবারও গাইবান্ধার স্বাধীনতা প্রাঙ্গণ চত্বরে এ মেলা অনুষ্ঠিত হয়। এ বারের দৃশ্য একটু ভিন্ন। শিশুদের আগ্রহটাই যেন বেশি, নারীদের ভিড়ও কম ছিল না। বিশেষ করে শেষ বিকালে পারিবারিকভাবে গাছ দেখতে আসা, কেনা, গাছ ফল ফুল সম্পর্কে জানতে চাওয়া শহরের অনেকের বৈকালিক বিনোদনের অংশ হয়ে দাঁড়ায়।

মেলায় এসে অনেক কিছুই ভালো লেগেছে।  মেলায় এসে নতুন অনেক কিছু জানতে পেরেছি যা অজানা ছিল, না আসলে অজানাই থাকত। 

আমি মনে করি ফুল, ফল ও গাছের প্রতি আকর্ষণ শিশুদের সহজাত। তবে আগ্রহ আর প্রেরণা আসে তার পারিপার্শ্ব থেকে। এ ক্ষেত্রে পরিবারের প্রভাব মুখ্য তবে বিদ্যালয়, বন্ধু, মিডিয়া এবং এ ধরনের মেলার অবদানও ইতিবাচক।

Print Friendly and PDF

সর্বাধিক পঠিত