বাল্যবিয়েও যেন আরেক মহামারি | hello.bdnews24.com
অন্য চোখে

আফ্রিদা জাহিন (১৩), রংপুর

Published: 2021-11-06 23:23:37.0 BdST Updated: 2021-11-06 23:23:37.0 BdST

মহামারি করোনাভাইরাসের দাপট এখন কমে গেছে। কিন্তু বাল্যবিয়ে যে মহামারি রূপ ধারণ করেছে, তা বললে ভুল হবে না।

সংবাদ মাধ্যমে দেখছি সারাদেশেই মহামারির কারণে বাল্যবিয়ের সংখ্যা বেড়েছে। হ্যালোতে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কুড়িগ্রামে এক উপজেলায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের ১৮ মাসে সাড়ে তিন’শ বাল্যবিয়ে হয়েছে। হ্যালোরই আরেক প্রতিবেদন থেকে জানতে পেরেছি, বাগেরহাটে দেড় বছরে তিন হাজার বাল্যবিয়ে হয়েছে। 

সাধারণত মেয়েরাই এর শিকার হচ্ছে। বিশেষ করে গ্রাম অঞ্চলে এরকম ঘটনা অহরহ ঘটে চলেছে। যদিও আগে থেকেই বাল্যবিয়ের প্রচলন ছিল আমাদের দেশে, কিন্তু মহামারিতে এটি আরেক মহামারি তৈরি করছে।

দরিদ্র, নিরাপত্তাহীনতা ইত্যাদি নানা কারণে বাল্যবিয়ে হচ্ছে। ফলে অনেক শিশু তার শিক্ষা অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এছাড়াও আমরা সবাই জানি, কিশোরী অবস্থায় গর্ভধারণ স্বাস্থ্য ও জীবনের জন্য কতটা ঝুঁকিপূর্ণ।

বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাকের জেন্ডার জাস্টিস অ্যান্ড ডাইভারসিটি বিভাগের একটি জরিপে অংশগ্রহণকারীদের ১৩ শতাংশ করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে তাদের এলাকায় বাল্যবিয়ে হয়েছে বলে জানিয়েছেন। ১১টি জেলার ৫৫৭ জন সাক্ষাৎকারদাতার ৭২ জন এই সময়ে ৭৩টি বাল্যবিয়ের ঘটনা দেখেছেন।

এসব বাল্যবিয়ের ৮৫ শতাংশই হয়েছে সঙ্কটকালে মেয়েদের ভবিষ্যৎ নিয়ে অভিভাবকদের উদ্বিগ্ন হওয়ার কারণে। ৭১ শতাংশ বিয়ে হয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায়।

করোনাভাইরাস সঙ্কটে বিদেশ থেকে ফেরত আসা পাত্র পাওয়ায় ৬২ শতাংশ শিশুর পরিবার বিয়ে দিতে আগ্রহী হয়েছে। ৬১ শতাংশে বিয়ে হয়েছে অভিভাবকের সীমিত উপার্জনের কারণে।

আমি মনে করি প্রশাসনকে কঠোর হওয়ার পাশাপাশি সহযোগিতার হাতও বাড়িয়ে দিতে হবে। যারা সত্যিকার অর্থেই আর্থিক সঙ্কটে পড়েছে তাদের সুরক্ষা ভাতা দেওয়া যেতে পারে। এই জীবনগুলো ধ্বংসের হাত থেকে বাঁচাতে দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়া উচিত।

Print Friendly and PDF

সর্বাধিক পঠিত