নারীর নিরাপত্তা ছাড়া অগ্রগতি অসম্ভব - hello
অন্য চোখে

রাইসান কবির রাহিম (১৭), কুমিল্লা

Published: 2021-03-08 16:23:37.0 BdST Updated: 2021-03-08 16:34:07.0 BdST

সবকিছুতেই নারীর অবদান থাকলেও সম্মান, নিরাপত্তা, অধিকারের বিষয়গুলোতে অবহেলিত তারা।

সামাজিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, তথ্যপ্রযুক্তি, শিক্ষা ইত্যাদি প্রায় সকল উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডই নারীদের অবদান এবং ভূমিকা বেশ গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের প্রায় সবার বাড়িতে সবার আগে ঘুম থেকে উঠেন আমাদের মা। বাসায় সবার জন্য নাস্তা তৈরি, খাবার-দাবার, ঘর পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা সর্বপরি বাড়ির পরিবেশ সুন্দর-সুশৃঙ্খল রাখতে মায়ের ভূমিকাই সবচেয়ে বেশি। শুধু ঘরের কাজই যে করতে হবে মাকে বিষয়টি এমন নয়। কিন্তু আমাদের প্রচলিত সমাজ পদ্ধতিতে এটিই বেশি ঘটে থাকে।

এখন ঘরে-বাইরে নারীদের গুরুত্ব দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। চিকিৎসা, তথ্যপ্রযুক্তি, প্রশাসন, শিক্ষাসহ নানা খাতে দারুণভাবে কাজ করছে নারীরা। ক্রীড়াক্ষেত্রেও দেশের জন্য সুনাম বয়ে আনছেন তারা। নারী ক্রিকেটে বাংলাদেশের এশিয়া কাপ জয়ের ঘটনা মনে থাকার কথা সবার। বয়সভিত্তিক ফুটবলেও বাংলাদেশ নারী দলের পারফরম্যান্স এককথায় অসাধারণ। ইরান, তাজিকিস্তান, আফগানিস্তানের মত শক্তিশালী দলগুলোকেও এখন নিয়মিত বড় ব্যবধানে হারাচ্ছে বাংলার মেয়েরা, ৮-১০ বছর আগেও যেটাকে মনে হত প্রায় অসম্ভব ব্যাপার।

প্রকৃতপক্ষে আমি মনে করি একটি রাষ্ট্রের সার্বিক উন্নয়ন সাধনের ক্ষেত্রে দেশের জনগণের সবারই কমবেশি দায়িত্ব রয়েছে। জনসংখ্যাকে দক্ষ জনশক্তিতে রূপান্তর করা গেলে দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নতি সাধন করা সহজতর হয়। এক্ষেত্রে রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ খাতগুলোতে নারীদের অংশগ্রহণ উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পাওয়া অবশ্যই ইতিবাচক দিক।

বিভিন্ন স্তরে নারীদের এই অগ্রযাত্রার ফলে মূলত লাভবান হচ্ছে বাংলাদেশই। গত দশ বছরে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নতি বেশ আশা জাগানিয়া। নারীদের ভূমিকাটা অনেকটা সিনেমার পার্শ্বনায়কদের মত। কাজের দিক থেকে অনেক গুরুত্বপূর্ণ হওয়া সত্ত্বেও প্রশংসা মেলে সেই তুলনায় অনেক কম। তবে সবচেয়ে দুঃখের বিষয় হচ্ছে বর্তমানে আমাদের দেশের নারীদের প্রতি সহিংসতা, নিপীড়ন, নির্যাতনের ঘটনা দিনদিন বেড়েই চলেছে। কোনোভাবেই যেন থামানো যাচ্ছে না এই ধ্বংসযজ্ঞ। একজন নারীর সুন্দর- সুষ্ঠুভাবে চলাচল করা যেন এই দেশের সবচেয়ে কঠিন কাজগুলোর মধ্যে একটা।

দেশের জনগণের প্রায় অর্ধেক সংখ্যকই নারী। সেক্ষেত্রে দেশের অর্ধেক জনগোষ্ঠীকে এমন নিরাপত্তার শঙ্কার মধ্যে রেখে জাতির অগ্রগতি সাধন প্রায় অসম্ভব। তাই ঘরে বাইরে সব জায়গাতেই নারীদের পূর্ণ সম্মান, মর্যাদা এবং নিরাপত্তা নিশ্চিত করা বেশ জরুরি একটা ব্যপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। এক্ষেত্রে আমি মনে করি, পারিবারিক, সামাজিক এবং মানসিক শিক্ষাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হাতিয়ার হতে পারে। ছোটবেলায় পরিবার থেকে প্রাপ্ত শিক্ষা শিশুদের মস্তিষ্কে দীর্ঘস্থায়ী হয়, তাই শিশু বয়স থেকেই এসব শিক্ষা প্রদান করা দরকার।

নারীদের সকলক্ষেত্রে সম্মান প্রদর্শন করতে হবে। নারীদের প্রতি অসুস্থ দৃষ্টিভঙ্গি পরিহার করতে হবে, কারো গায়ের রঙ, শারীরিক গঠন ইত্যাদি নিয়ে বাজে মন্তব্য করার যে সামাজিক ব্যাধি এটি থেকে বের হয়ে আসতে হবে। নারীদের আত্মরক্ষার বিভিন্ন কৌশল বিষয়ক প্রশিক্ষণ প্রদান করা যেতে পারে যেন তারা নির্যাতনের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে পারে।

সমাজের সর্বস্তরে নারীদের পূর্ণ সম্মান এবং নিরাপত্তা নিশ্চিত হোক। সহজতর হোক নারীদের জীবন, সুন্দরতর হোক পৃথিবী।

Print Friendly and PDF

সর্বাধিক পঠিত