অন্য চোখে

শেখ নাসির উদ্দিন (১৬), টাঙ্গাইল

Published: 2019-10-14 17:53:05.0 BdST Updated: 2019-10-14 17:53:05.0 BdST

আমাদের নদীমাতৃক এই দেশে অবহেলিত হলো নদী। প্রতিনিয়ত নদী দুষণের শিকার হচ্ছে আর এর ফলে নদী হারাচ্ছে তার রূপ, নাব্য। এর ফলে পরিবেশে পড়ছে বিরূপ প্রভাব। তাই দেশকে বাঁচাতে হলে নদীকে বাঁচানো অপরিহার্য।

আমার বাড়ির পাশের খালের কথা দিয়ে শুরু করি। ছোটবেলায় খালে প্রায় সারা বছর গোসল করতাম, মাছ ধরতাম। কিন্তু 

এর বর্তমান অবস্থা এতই খারাপ যে শুধু ভরা বর্ষায় গোসল করা যায়। বছরের অন্য সময় কলকারখানার বর্জ্যে পানি এত নোংরা থাকে যে শখ করে কেউ নামতে সাহস করে না।

আগে ধান হতো খালের ধারে। এখন আর ধান বুনলে ফসল ভালো হয় না। এজন্য অনেকে ধান বোনা বন্ধ করে দিয়েছেন। এছাড়া খালের অনেক অংশ ভরাট করে এখন প্রায় খালকে নালা করে ফেলা হয়েছে।

বাংলাদেশের সমস্ত বুক জুড়ে জালের মতো ছড়িয়ে আছে নদীগুলো।

তবে উজানে বাঁধের কারণে এদেশের অনেক নদী শুকিয়ে যাচ্ছে। অনেক নদী আবার ভরাট করে ফেলছে স্বার্থান্বেষী মহল। এছাড়াও নাব্যতা সংকটসহ বিভিন্ন কারণে পলি জমে জমে অনেক নদী ভরাট হয়ে যাচ্ছে প্রতিবছর।

যার কারণে দেশে নদ-নদীর ভবিষ্যৎ নিয়ে যেমন শঙ্কা তৈরি হয়েছে, তেমনি বড় হুমকির মুখে পড়েছে জীব-বৈচিত্র্য।

আমাদের রাজধানী ঢাকার চারপাশে আছে বুড়িগঙ্গা, তুরাগ, বালু, শীতলক্ষ্যা নদী। এই নদীগুলোর অনেক অংশই দখল ও দুষণের শিকার। তবে আশার কথা নদীগুলো দখলমুক্ত করে নাব্যতা ফেরানোর কাজ করছে সরকার।

বাংলাদেশ নদী রক্ষা কমিশনের ২০১১ সালের হিসাবে বাংলাদেশে ৪০৫টি নদী ছিল। দেশের নদীগুলোর মধ্যে মুমূর্ষু অবস্থায় আছে ময়মনসিংহের পুরনো ব্রহ্মপুত্র, নেত্রকোণার মগড়া, কংস, সোমেশ্বরী, খুলনার রূপসা, শিবসা, ডাকি, আত্রাই, ফরিদপুরের কুমার, বগুড়ার করতোয়া, কুমিল্লার গোমতি, পিরোজপুরের বলেশ্বর, যশোরের ভৈরব, কপোতাক্ষ, ইছামতি, বেতনা, মুক্তেশ্বরী, কিশোরগঞ্জের নরসুন্দা, ঘোড়াউত্রা, ফুলেশ্বরী, রাজবাড়ীর হড়াই, কুড়িগ্রামের ধরলা, গাইবান্ধার ঘাঘট, বান্দারবানের সাঙ্গু, খাগড়াছড়ির চেঙ্গী, নওগাঁর আত্রাই এবং জামালপুরের ঝিনাই নদী।

আমি মনে করি নদী রক্ষায় সরকারি  নীতিমালা প্রয়োজন। দখলদারা যাতে কোনোভাবে নদী দখল না করতে পারে সেদিকে স্থানীয় প্রশাসনকে সজাগ থাকতে হবে। মাঝে মাঝে ভ্রাম্যমাণ আদালতে পরিচালনা করতে হবে।

আমাদের সচেতন হতে হবে। অপরিশোধিত কলকারখানার বর্জ্য পদার্থ, প্লাস্টিক বর্জ্য তাছাড়া যেসব পদার্থ নদীর পানিকে দুষণ সৃষ্টি করে সেসব পদার্থ নদীতে না ফেলে নদী রক্ষা করতে পারি। নদীকে রক্ষা করতে পারলে একদিকে যেমন পরিবেশের বিরূপ পরিস্থিতি দূর হবে তেমনি বন্যার ভয়াবহতা হ্রাস করা সম্ভব। নদীতে থাকবে প্রচুর দেশীয় মাছ আর চাঞ্চল্যতায় ফিরবে নদী কেন্দ্রিক অর্থনীতি।

Print Friendly and PDF

সর্বাধিক পঠিত