অন্য চোখে

অগ্রঃ (১০), সাতক্ষীরা

Published: 2019-05-26 19:19:18.0 BdST Updated: 2019-05-26 19:19:37.0 BdST

বিধ্বংসী ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছাস আইলার ১০ বছর পূর্ন হয়েছে গতকাল।

ঘূর্ণিঝড় আইলা উপকুলের আশপাশের জেলার মতোও সাতক্ষীরা জেলায় জানমালের ব্যাপক ক্ষতি করে। খুলনা ও সাতক্ষীরায় ৭১১ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ বিধ্বস্থ হয়ে পড়ে। যার ফলে লোনা পানিতে তলিয়ে যায় খুলনার দাকোপ, কয়রা ও সাতক্ষীরার শ্যামনগর, আশাশুনি উপজেলার ১৩টি ইউনিয়ন। এতে ৭৬ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ সম্পুর্ণ এবং ৩৬২ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ আংশিক ক্ষতি হয়।

ঘূর্ণিঝড়ের কয়েক মাস পর থেকে এলাকাগুলোয় গাছপালা মরতে শুরু করে ও বিরান ভূমিতে পরিণত হয়। আর ২ লাখ ৪৩ হাজার ঘরবাড়ি সম্পুর্ণ বিধ্বস্ত হয়ে বাস্তচুত্য হয় ৩ লাখ পরিবার। এতে খুলনা ও সাতক্ষীরায় প্রাণ হারায় কয়েক শত নারী, পুরুষ ও শিশু। এসকল দূর্যোগ কবলিত এলাকায় নেই পর্যাপ্ত সাইক্লোন শেল্টার। আর এ কারনেই আতংকে থাকে উপকুল এলাকার মানুষরা। আতংকিত হয় শিশুরা। তারা নদীর বেড়িবাঁধ দিয়ে স্কুল মাদ্রাসায় যেতে ভয় পায়।

আজ আইলার ১০ বছরে এলাকার বেড়িবাঁধগুলো সংস্কার হয়নি। এজন্য এখনও বছরে ২/৩ বার পানিবন্দী হয়ে পড়ছে সাতক্ষীরার আশাশুনি ও শ্যামনগর নি¤œ এলাকার অনেক মানুষ। সে কারণে মানুষের মুখে মুখে ত্রাণ নয় টেকসই বেড়িবাঁধ চাই।

 

Print Friendly and PDF

সর্বাধিক পঠিত