অন্য চোখে

মুহাম্মাদ শরিফুজ্জামান বাপ্পি (১৫), রাজশাহী

Published: 2019-05-09 13:17:58.0 BdST Updated: 2019-05-09 13:17:58.0 BdST

বাংলাদেশের প্রখ্যাত পরমাণু বিজ্ঞানী ও পরমাণু শক্তি কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া।

তিনি শেখ মুজিবর রহমানের জামাতা ও গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বামী।

তিনি ১৯৪২ সালের ০৬ ফেব্রুয়ারি রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার ফতেহপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়ার বাবার নাম আব্দুল কাদের মিয়া এবং মায়ের নাম ময়েজুন্নেসা। তারা ছিলেন তিন ভাই ও চার বোন, যাদের মধ্যে তিনি ছিলেন সবচেয়ে ছোট।

তিনি চককরিম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাথমিক শিক্ষা লাভ করে রংপুর জিলা স্কুল থেকে ডিস্টিংশনসহ প্রথম বিভাগে ম্যাট্রিকুলেশন পাশ করেন।

১৯৫৮ সালে রাজশাহী কলেজ থেকে তিনি ইন্টারমিডিয়েট পাশ করেন।

পরবর্তীতে ১৯৬২ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পদার্থবিজ্ঞানে এমএসসি পাশ করে ১৯৬৭ সালে লন্ডনের ডরহাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডক্টরেট ডিগ্রি লাভ করেন। ছাত্রজীবনে তিনি রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন।

তিনি ১৯৬৩ সালে তৎকালীন পশ্চিম পাকিস্তানের লাহোরে আণবিক শক্তি কমিশনে যোগ দেন। স্বাধীন বাংলাদেশে পরমাণু শক্তি কমিশনের প্রথম চেয়ারম্যান ছিলেন তিনি। ১৯৯৯ সালে তিনি অবসর নেন।

স্নাতক পর্যায়ের বিজ্ঞানের ছাত্রদের জন্য তার লেখা বইয়ের সংখ্যা দুটো; ফান্ডামেন্টালস অব থার্মোডিনামিক্‌স, ফান্ডামেন্টালস অব ইলেক্ট্রোমেগনেটিকস।

ওয়াজেদ মিয়ার অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে 'ড. ওয়াজেদ রিসার্চ ইন্সটিটিউট' এবং জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে দক্ষিণ এশিয়ার সর্ববৃহৎ বিজ্ঞানাগার 'এম এ ওয়াজেদ মিয়া বিজ্ঞান গবেষণা কেন্দ্র' প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। নামজাদা এই পরমাণু বিজ্ঞানী ২০০৯ সালের ৯ মে ঢাকা স্কয়ার হাসপাতালে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন।

Print Friendly and PDF

সর্বাধিক পঠিত
  • রেলক্রসিংয়ের নারী গেটম্যানের গল্প

    নগরীর ভদ্রা রেলক্রসিংয়ে লাল-সবুজ রঙের দুটো পতাকা হাতে নিয়ে ছুটোছুটি করছেন তানজিলা খাতুন। বয়স কুড়ি পেরোয়নি। কিন্তু কাজের মাধ্যমে তিনি বয়সকে ছাড়িয়ে গেছেন।

  • তীব্র গরমে অসুস্থ হয়ে পড়ছে ঝালকাঠির শিশুরা (ভিডিওসহ)

    মাত্র একদিনের বিরাম দিয়েই আবারও কাঠফাঁটা রোদ আর তীব্র তাপদাহে পুড়ছে দক্ষিণ জনপদ ঝালকাঠি। জেলা জুড়ে অসহনীয় গরমে মানুষজন অসুস্থ হয়ে পড়ছে। বাড়তি চাপে হাসপাতালে রোগীর চাপ বেড়েই চলছে, অনেকের ঠাঁই হচ্ছে মেঝেতে।

  • যৌন নিপীড়ন ও শিশু

    অন্য সকলের মতো সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠে, পড়ার ফাঁকে সময় পেলে টিভি দেখাটা আমার অভ্যাস।