অন্য চোখে

ফাহিম আহম্মেদ রিয়াদ (১৬), বগুড়া

Published: 2018-11-19 18:11:25.0 BdST Updated: 2018-11-19 18:14:19.0 BdST

অগ্রহায়নে নতুন ধান কাটার পর দেশের বাঙালির ঘরে ঘরে শুরু হয় নবান্ন উৎসব। নতুন ধান কাটার পর সেই ধানের চালের প্রথম রান্না উপলক্ষে এই উৎসব হয়। শিশু সাংবাদিক ফাহিম আহম্মেদ রিয়াদের প্রতিবেদন।

নবান্ন উপলক্ষে প্রচলিত আছে অনেক আচার অনুষ্ঠান। উত্তরের জেলাগুলোতে জামাইকে নিমন্ত্রণ করে পিঠা-পায়েস খাওয়ানো হয়। নাইওর আনা হয় মেয়েকে।

গ্রামবাংলার ঘরে ঘরে এসময় তৈরি হয় বিভিন্ন পদের ব্যঞ্জন, মিষ্ঠান্ন ও পিঠা-পুলি। কৃষিভিত্তিক সভ্যতার পুরোভাগে থাকা এই নবান্ন উৎসব অনাদিকাল হতে বাঙালির জীবন অধিকার করে আছে। সেই সুরে সারা দেশের ন্যায় বগুড়ার কাহালুতেও ধুমছে পালন করা হচ্ছে দিনটিকে।

উৎসবকে ঘিরে কাহালু বাজারে জমে উঠেছে মাছের বাজার। মাছ কেনার জন্য এলাকাবাসীর পাশাপাশি জেলা শহর এবং আশে পাশের উপজেলা থেকে মানুষ এসেছে পছন্দের মাছ কেনার জন্য।

বিভিন্ন হাওড়-বাওড়, নদী এবং খালের বিভিন্ন প্রজাতির বিশাল বিশাল মাছ এই মেলায় স্থান পায়। রাজশাহী, পুঠিয়া, সাপাহাড়, তালোড়াসহ আরও বিভিন্ন এলাকার খাল বিল থেকে আনা হয় মাছ।

কাহালু বাজারে উঠেছে কাতল, সিলভার কার্প, বোয়াল, চিতল, কালবাউশ, পাঙ্গাস ও দেশীয় মাছসহ ছোট বড় নানা প্রজাতির বিশাল বিশাল মাছ। এছাড়াও নবান্নকে ঘিরে দেশি চিড়া, দই, জিলাপিসহ নানা প্রকারের মিষ্ঠান্নর পসরা নিয়ে বসেছে দোকানীরা।

সেই সাথে বাজারে উঠেছে নতুন জাতের ফল ও নতুন নতুন শীতকালীন সবজি।

Print Friendly and PDF

সর্বাধিক পঠিত