অন্য চোখে

শাহরিয়ার সিফাত (১৭), রংপুর

Published: 2018-02-13 22:19:21.0 BdST Updated: 2018-02-14 19:04:53.0 BdST

এক সময়ের মঞ্চ নাটকের অদ্বিতীয় অভিনেতা ও নাট্য সংগঠক, যিনি অভিনয়ের মাধ্যমে মুগ্ধ করে তুলেছিলেন বাঙালি মধ্যবিত্ত জীবন ধারাকে তিনি হুমায়ুন ফরীদি।

তিনি অভিনয়ে এত প্রাণবন্ত  ছিলেন যে চরিত্রগুলো জীবন্ত হয়ে যেত তার ছোঁয়ায়।

এই অভিনেতার নাটক মানেই সেসময়ে বাংলাদেশ টেলিভিশনের সাদাকালো পর্দায় চোখ আটকে যাওয়া। যার অভিনয়ের জাদুতে মগ্ন থাকত সবাই।

এই অভিনেতা ১৯৫২ সালের ২৯ মে ঢাকার নারিন্দায় জন্মগ্রহণ করেন। প্রাথমিক শিক্ষা লাভ করেন নিজ গ্রাম কালিগঞ্জে। এরপর ১৯৬৮ সালে মাদারীপুর ইউনাইটেড সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাশ করেন এবং ১৮৭০ সালে চাঁদপুর কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করেন। এরপর তিনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতি বিষয়ে স্নাতক সম্মান ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি নেন।

তিনি মাদারীপুর অবস্থান কালেই নাট্য জগতে প্রবেশ করেন। ১৯৭৬ সালে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়ন কালে অনুষ্ঠিত নাট্য উৎসবের অন্যতম সংগঠক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। পরবর্তীতে এর মাধ্যমে তিনি নাট্যাঙ্গনে পরিচিত মুখ হয়ে উঠেন।

টেলিভিশন নাটকে হুমায়ুন ফরীদির অভিষেক হয় ‘নিখোঁজ সংবাদ’ নাটকের মাধ্যমে। তিনি অনেক নাটকে অভিনয় করেন। এর মধ্যে বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রচারিত বিখ্যাত সংশপ্তক নাটকে 'কানকাটা রমজান' চরিত্রে অভিনয়ের জন্য বিখ্যাত হয়েছিলেন। ১৯৯০ দশকে চলচ্চিত্র জগতে প্রবেশ করলে তিনি প্রচুর জনপ্রিয়তা অর্জন করেন।

হুমায়ুন ফরীদি ২০০৪ সালে চলচ্চিত্র জগতে অসামান্য অবদানের জন্য ‘জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার’ লাভ করেন এবং জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠান উপলক্ষে নাট্যাঙ্গেন অবদানের জন্য তাকে সম্মাননা প্রদান করে।

২০১২ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি এই অভিনেতা ঢাকায় মৃত্যুবরণ করেন।

 

Print Friendly and PDF

সর্বাধিক পঠিত
  • আমার ভালোবাসা

    মানুষের জীবনে নিজের কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জিনিস হলো তার নাম। নাম দিয়েই আমরা একজন থেকে আরেকজনকে আলাদা করে চিনতে পারি। আর নিজের নাম ভালোবাসে না বা অন্যের মুখে সে নাম শুনলে ভালো লাগে না এমনটি হতে পারে খুব কম।

  • বগুড়ায় এডওয়ার্ড পার্ক শিশুদের প্রিয় জায়গা (ভিডিওসহ)  

    শিশু-কিশোরসহ বড়রাও বেড়াতে ভালোবাসেন বগুড়া এডওয়ার্ড পার্কে।

  • একাধিক শিশু জন্মানোর ঝুঁকি ও সতর্কতা (ভিডিওসহ)

    প্রায়ই আমরা জমজশিশু জন্মাতে দেখি। কখনো কখনো দুইয়ের বেশি শিশু প্রসব করার ঘটনাও শোনা যায়। সম্প্রতি টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে কুমুদিনী হাসপাতালে পরপর তিন নবজাতকের জন্ম দেন বানাইল গ্রামের সুবর্ণা বেগম।