‘লেখাপড়ার সুযোগের অভাবই বাল্যবিয়ের কারণ’

’দরিদ্রতার কারণেই পড়ালেখার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হতে হয় বলেও জানায় তারা।’
‘লেখাপড়ার সুযোগের অভাবই বাল্যবিয়ের কারণ’

প্রতিনিধিত্বশীল ছবি

কুড়িগ্রামের বিভিন্ন গ্রাম ও চর অঞ্চলে প্রায়ই বাল্যবিয়ের ঘটনা ঘটতে দেখা যায়। এসব বাল্যবিয়ের পেছনে লেখাপড়ার সুযোগের অভাবকে দায়ী করছেন স্থানীয়রা।

দরিদ্রতার কারণেই পড়ালেখার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হতে হয় বলেও জানায় তারা।

জেলার উলিপুর উপজেলার চোউমনি বাজারের বাসিন্দা মোছা. দিলরুবা খাতুনের সঙ্গে কথা হয় হ্যালো ডট বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের।

১৪ বছর বয়সে বাল্যবিয়ের শিকার হন এই নারী। তিনি জানান, পড়াশোনার ইচ্ছে থাকলেও কৃষক বাবার আর্থিক সংকটের কারণে পড়াশোনা করার সুযোগ হয়নি।

হ্যালোকে তিনি বলেন, “বাবা কৃষিকাজ করত। আর্থিক অবস্থা ভালো না থাকার কারণে ১৪ বছর বয়সে বিয়ে দিয়ে দেওয়া হয় আমাকে।”

এই নারীর মা মোছা. রুবিনা খাতুন হ্যালোকে বলেন, “১৪ বছর বয়সে আমি আমার মেয়েকে বিয়ে দেই। আমার আর্থিক অবস্থা ও স্বাস্থ্যগত অবস্থা ভালো ছিল না। তাই তাকে বিয়ে দিয়েছিলাম।”

প্রতিবেদকের বয়স: ১৫। জেলা: কুড়িগ্রাম।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.

সর্বাধিক পঠিত

No stories found.
bdnews24
bangla.bdnews24.com