সেবিকা দিবসে স্বাস্থ্যবিধি মানার আহ্বান - hello
খবরাখবর

আশিকুজ্জামান আশিক (১৭), রাজশাহী

Published: 2021-05-11 22:39:45.0 BdST Updated: 2021-05-11 22:39:45.0 BdST

করোনাভাইরাস মহামারিতে সামনের সারির যোদ্ধা হিসেবে লড়াই করে যাচ্ছেন সেবিকারা। জনসাধারণকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান তাদের। 

আন্তর্জাতিক সেবিকা দিবস উপলক্ষ্যে হ্যালোর সঙ্গে কথা হয় রাজশাহী মেডিকেল কলেজের কোভিড-১৯ ইউনিটে দায়িত্বরত সেবিকাদের সঙ্গে। মনোবল শক্ত রেখে তারা লড়াই করে যাচ্ছেন বলে জানান।

ঝিকিয়ারা খাতুন নামে একজন বলেন, "আসলে আমরা কেমন আছি তা ছোট্ট করে বলা সম্ভব নয়। বাইরে যাওয়া তো দূরে থাক আমরা পরিবার থেকেও দুরত্ব রেখে চলাচল করি যাতে আমাদের থেকে কোনোভাবে তাদের কাছে ভাইরাস না ছড়ায়। কোভিড আসার পর থেকে আমরা কোনো ঈদে কিছু কিনি নাই, অতি প্রয়োজন ছাড়া বের হইনি। শুধু এই ভেবে যে আমাদের থেকে করোনা ছড়াতে পারে।"

শাহিদ খাতুন নামে একজন সিনিয়র স্টাফ নার্স বলেন, "আমার বাচ্চাকে যে আমি কতদিন কাছে আসতে দেই নাই তা আমিই জানি। বাসায় যখন ঢুকি তখন বাচ্চাটা কাছে আসতে চায় কিন্তু আমার থেকে যাতে তার কাছে, পরিবারের কাছে করোনা না ছড়ায় তাই সাবধান থাকতে হয়। দূরত্ব রাখতে হয়, নানা অজুহাতে বাচ্চাকে দূরে রাখতে হয়।"

ঝিকিয়ারা খাতুন বলছিলেন, "আমরা কোভিডে ডিউটি করছি কারণ আমাদের কাজই রোগীদের সেবা দেওয়া। রোগীদের সেবা দেওয়ার জন্যই আমাদের পড়াশোনা। এখন আমি আক্রান্ত হতে পারি এই ভয়ে যদি আমরা ডিউটি না করি তবে ডিউটি করবে কে।"

আক্ষেপ নিয়ে তিনি বলেন, "ভয় আমাদেরও আছে তবে মানব সেবার জন্যই আমরা করোনার ভয়কে পাশ কাটিয়ে সেবা দিয়ে যাচ্ছি। কিন্তু আসলে খুবই খারাপ লাগে বাংলাদেশের সাধারণ মানুষদের জন্য। আমরা এতো ঝুঁকি নিয়ে তাদের সেবা দিয়ে থাকি যাতে তারা সুস্থ থাকে কিন্তু তারা সুস্থ থাকার জন্য ঈদের বাজারকে ত্যাগ করতে পারে না। ঈদে বাড়ি যাওয়া ত্যাগ করতে পারে না, সচেতন থাকতে পারে না। অথচ আমরা তাদের জন্য ছোট বাচ্চা, পরিবার, ঈদ, কেনাকাটা কত কিছুই না ত্যাগ করছি। সকলে সচেতন না হলে পরিস্থিতির উন্নতি হওয়া কঠিন হয়ে পড়বে।"

শাহিদা খাতুন আরো বলেন, "সকলের নিকট আমাদের অনুরোধ থাকবে যাতে সবাই সচেতন থাকে। ভ্যাক্সিন আসলেও করোনার বিরুদ্ধে লড়তে সচেতনতার কোনো বিকল্প নেই। যাদের পরিবারের কেউ মারা যায় মূলত তারা বিষয়টা গুরুত্ব দেয়। তারা আফসোস করে যে কেন সচেতন ছিলাম না, কেনো মাস্কটা পরলাম না।"

Print Friendly and PDF

সর্বাধিক পঠিত
  • ঘুরে এলাম ‘মৈনট ঘাট’ (ভিডিওসহ)

    সময়, সুযোগ আর সব কিছু মিলে গেলে আমি আমার পরিবার পরিজনের সাথে কোথাও না কোথাও বেড়াতে যাই। এবার গিয়েছিলাম ঢাকা থেকে মাত্র ষাট কিলোমিটার দূরে দোহার উপজেলার মৈনট ঘাটে। অনেক দিন ধরেই যাই যাই করেও যাওয়া হচ্ছিল না।

  • কলেজে ভর্তি হয়েছি, ক্লাসে যাইনি

    আমি এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছি ২০২০ সালে। অর্থাৎ দেশে করোনাভাইরাস মহামারি প্রকট হওয়ার আগেই শেষ হয়ে যায় আমাদের পরীক্ষা। 

  • বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবলের ফাইনাল (ভিডিওসহ)

    পঞ্চগড়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে।