খবরাখবর

রাফসান নিঝুম (১৭), ঢাকা

Published: 2020-06-30 19:44:25.0 BdST Updated: 2020-06-30 19:44:55.0 BdST

দীর্ঘ বন্ধে শিক্ষার্থীরা যেন পড়ালেখা থেকে পিছিয়ে না যায় সে কারণে অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান অনলাইন ক্লাস নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তবে অনেকের দাবি ইন্টারনেট খরচ, ডিভাইসের সংকট ও দুর্বল নেটওয়ার্কের জন্য কেউ কেউ ক্লাসে নিয়মিত হতে পারছে না।

এসব বিষয়ে হ্যালোর সাথে কথা হয় কয়েকজন শিক্ষার্থীর।

উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুল এন্ড কলেজের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র মুশরফ খান রিয়ান বলে, "অনলাইন ক্লাস অনেকেই করতে পারছে না। যারা গ্রামে আছে অথবা, যাদের বাসায় স্মার্টফোন নেই অথবা যাদের বাসায় ল্যাপটপ নেই অথবা যাদের বাসায় ইন্টারনেটের সংযোগ নেই তারা অনলাইন ক্লাস করতে পারছে না। তবে অনলাইন ক্লাসের জন্য আমাদের পড়াশোনার ধারাবাহিকতা টিকে আছে।"

রাজধানীর বাসাবো এলাকায় পরিবারের সাথে বসবাস করেন এহসানুল হক মাহাদী। উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুল এন্ড কলেজের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র সে।

মাহাদী বলে, "আমরা অনেক কম সংখ্যায় অনলাইন ক্লাস করি। যাদের নেট আছে, খুব ভালো পাওয়ারে চলে তারাই শুধু অনলাইন ক্লাস করতে পারে। বাকিরা পায় কিনা তা জানি না।"

এসএসসি পরীক্ষার্থী রুনায়েদ নিকি পড়ে মাদারটেক আব্দুল আজিজ স্কুলে। তার স্কুল থেকে অনলাইন ক্লাসের ব্যবস্থা না থাকলেও অনলাইনে বিভিন্ন প্ল্যাটফর্ম থেকে ও ক্লাস করছে।

নিকি হ্যালোকে বলে, "আমি ঢাকায় থাকি, আমার বাসায় নেট আছে। আমি হয়তো ক্লাস করতে পারছি। কিন্তু দেখা যাচ্ছে যার বাসায় নেট নাই বা আমার যে বন্ধু গ্রামে আছে তারা তো এখান থেকে পিছিয়ে পড়ছে। আমি যেগুলা শিখছি তারা হয়তো সেগুলা শিখতে পারছে না। এখন তাদের কী হবে?"

অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী সৈয়দ এনায়েতুল হক তানহা পড়ে রাজধানীর মতিঝিল সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে।

অনলাইন ক্লাসের ব্যাপারে তানহা বলে, "অনেক সময় নেটে প্রবলেম হয়, ক্লাসে থাকলে যে রকম বোঝা যায়, এখানে সে রকম বোঝা যাচ্ছে না। লাইভ ছাড়া আবার কমেন্ট করা যাচ্ছে না। যে কারণে অসুবিধা হচ্ছে।"

 

 

Print Friendly and PDF

সর্বাধিক পঠিত