শিশুদের জন্য দুর্যোগমুক্ত পৃথিবী চাই

প্রতিনিধিত্বশীল ছবি

শিশুদের জন্য দুর্যোগমুক্ত পৃথিবী চাই

'যদিও জলবায়ু পরিবর্তনে শিশুদের কোনো ভূমিকা নেই তবুও এর নেতিবাচক প্রভাব শিশুদের ওপর পড়ছে।'

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম।

জাতিসংঘের শিশু তহবিল ইউনিসেফ বলছে,বাংলাদেশে প্রতি তিন জন শিশুর মধ্যে এক জন মারাত্মকভাবে জলবায়ু ঝুঁকির মুখে রয়েছে।

তাদের মধ্যে ৫০ লাখ শিশুর বয়স পাঁচ বছরের কম। এক কোটি ২০ লাখ শিশু বন্যাপ্রবণ এলাকার কাছাকাছি বাস করে এবং উপকূলীয় এলাকায় বসবাসকারী ৪৫ লাখ শিশু তীব্র ঘূর্ণিঝড়ের কবলে পড়ার ঝুঁকির মুখে রয়েছে।

মানুষের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের ফলেও জলবায়ুর পরিবর্তন হচ্ছে। তার মধ্যে অন্যতম হলো বৃক্ষ নিধন, বন উজাড়, কলকারখানার দূষিত বর্জ্য ও কৃষি ক্ষেত্রে কীটনাশকের ব্যবহার ইত্যাদি।

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে নানা ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ ক্রমাগত বেড়েই চলেছে। বিভিন্ন ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ যেমন ঘূর্ণিঝড়, খরা, বন্যা, অতিবৃষ্টি, অনাবৃষ্টি, সাইক্লোন, টর্নেডো, নদী ভাঙন ও জলোচ্ছ্বাস ইত্যাদির ক্ষতিকর প্রভাব পড়ছে শিশুদের ওপর। যদিও জলবায়ু পরিবর্তনে শিশুদের কোনো ভূমিকা নেই তবুও এর নেতিবাচক প্রভাব শিশুদের ওপর পড়ছে।

জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতিকর প্রভাবে শিশুরা নানাভাবে আক্রান্ত হচ্ছে। তাদের কেউ শিক্ষার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে কেউ আবার বাল্যবিয়ের শিকার হচ্ছে।

নদী ভাঙনের ফলে অনেক পরিবারকেই সর্বস্ব হারিয়ে বস্তিতে আশ্রয় নিতে হয়। বস্তির অস্বাস্থ্যকর পরিবেশের কারণে বিভিন্ন রোগবালাইয়ে আক্রান্ত হয় অনেক শিশু। সুষম খাদ্যের অভাবে পুষ্টিহীনতায় ভুগতে দেখা যায় এসব পরিবারের অনেক শিশুকে।

জীবিকার সন্ধানে অনেক শিশু শ্রমে নিযুক্ত হয়। এই সব ঘটনার সবই কোনো না কোনো ভাবে জলবায়ু পরিবর্তনের সঙ্গে সম্পর্ক যুক্ত। যদিও জলবায়ু পরিবর্তনে শিশুদের কোনো হাত নেই তবুও তারাই জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে।

তাই জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতিকর প্রভাব রোধে এখনই সবাইকে সচেতন হতে হবে। তাহলে শিশুদের একটি সুন্দর পৃথিবী উপহার দেওয়া সম্ভব।

প্রতিবেদকের বয়স: ১৩। জেলা: ঢাকা।

Related Stories

No stories found.
bdnews24
bangla.bdnews24.com