সহশিক্ষাকে গুরুত্ব দিতে হবে

আমি নূশরাত ইসলাম তৃষা। বাগেরহাট সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণিতে পড়ি। আমি চতুর্থ শ্রেণি থেকে শিশু সাংবাদিকতা করি।
সহশিক্ষাকে গুরুত্ব দিতে হবে

আমার এই পাঁচ বছরের সাংবাদিকতার জীবনে অনেক কিছু শিখেছি এবং অনেক কিছু শিখছি। সংবাদ সংগ্রহের ক্ষেত্রে আমাকে অনেক তথ্য জানতে হয়। আর আমি করি এই জানাটা আমাকে সমৃদ্ধ করে। 

আমার মনে হয় যেকোনো কাজ করা ও শেখার মধ্যে থেকেই জ্ঞান লাভ করা সম্ভব। জ্ঞান লাভের জন্য শুধু পাঠ্যবই যথেষ্ট নয়। বর্তমান বিশ্বকে জানতে হলে আমাদের প্রচুর পড়তে হবে। এছাড়া পড়াশোনার পাশাপাশি সহশকিক্ষা হিসেবে অন্তত একটি সৃজনশীল কাজ করা উচিত বলে মনে করি। 

সেই সৃজনশীল কাজটি হতে পারে নাচ, গান, ছবি আঁকা, আবৃত্তি করা, লেখালেখি বা শিশু সাংবাদিকতা করা। নিজের ভেতরে থাকা সুপ্ত প্রতিভাকে বিকশিত করার সময় এখনই।

প্রত্যক মানুষের মাঝেই কোনো না কোনো প্রতিভা থাকে। আমি মনে করি, সৃজনশীল কাজ শিশুর জ্ঞানের বিকাশ ঘটায়। আমি যদি আমার কথাই বলি, আমি শিশু সাংবাদিকতা থেকে অনেক কিছু শিখেছি। অনেক নতুন জ্ঞান লাভ করেছি। কীভাবে সংবাদ তৈরি করতে হয় তা শিখেছি। কোনটা সংবাদ আর কোনটা সংবাদ না তা বুঝতে শিখেছি। সঠিক তথ্য যাচাই করা শিখছি।  আমি আরও যেটা শিখেছি সেটা হলো সাজিয়ে গুছিয়ে কথা বলা, মানুষের সঙ্গে মেশা। সতর্কতার সঙ্গে ইন্টারনেট ব্যবহার করা। 

অনেক সময় আমাকে অনেকে জিজ্ঞাসা করেছেন পড়াশোনার পাশাপাশি অন্য কোনো কাজ করলে পড়াশোনার ক্ষতি হয় কী না?  আমি মনে করি তা হয় না। আমরা প্রত্যেকে দিনে একটা নির্দিষ্ট সময়ে পড়াশোনা করি। এরপর একটা অবসর সময় থাকে।

সেই অবসর সময় কাটাতে আমরা যদি আমাদের পছন্দের কোনো সৃজনশীল কাজকে বেছে নিই, তবে আমাদের অবসর আনন্দময় হবে।

পড়াশোনা করার পরে আমরা যদি অন্য কোনো কাজ করি তাহলে আমাদের পড়াশোনার কোনো ক্ষতি হবে না। 

সৃজনশীল কাজ আমাদের মেধা বিকাশে সহায়তা করে। বর্তমান বিশ্বকে জানতে হলে সৃজনশীলতার অনুশীলনের বিকল্প নেই। একজন সৃজনশীল মানুষ সব সময়ই এগিয়ে থাকে।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.

সর্বাধিক পঠিত

No stories found.
bdnews24-web.quintype.io