নাম না জানা সেই মানুষগুলোকে ভালোবাসা

ছোটবেলায় টিকা নেওয়ার স্মৃতিগুলো আমার তেমন মনে নেই। মা-বাবার কাছে শুনেছি সংক্রামক ব্যাধি থেকে রক্ষা পেতে বিভিন্ন সময়ে আমি বেশকিছু টিকা নিয়েছি।
নাম না জানা সেই মানুষগুলোকে ভালোবাসা

যক্ষা থেকে রক্ষা পেতে নিয়েছি বিসিজি, পোলিও থেকে সুরক্ষার জন্য ওপিসি, ডিপথেরিয়া, হুপিংকাশি, টিটেনাস, হেপাটাইটিস এবং ইনফ্লুয়েঞ্জা থেকে মুক্ত থাকতে আরো কিছু টিকা নেওয়া হয়েছে আমার। আর কয়েক মাস হলো নিলাম কোভিড-১৯ এর দুটি টিকা।

করোনাভাইরাস মহামারির সময় যখন মৃতের সংখ্যা কেবলই বাড়ছিল, সমস্ত পৃথিবী জুড়ে চলছিল টিকা তৈরির তোড়জোড়, তখনি প্রথম বুঝতে পারি এর পেছনে যারা কাজ করছে তাদের নিরলস পরিশ্রমটা।

আজ এই চিঠি লিখতে গিয়ে বুঝতে পারছি টিকা আবিষ্কার থেকে শুরু করে টিকা গ্রহণকারী পর্যন্ত পৌঁছে দিতে অবদান রাখছে যারা, তারা কতটা মহান।

একদিকে যখন হিংসা, যুদ্ধ, হানাহানি কেড়ে নিচ্ছে অসংখ্য প্রাণ, অন্যদিকে একদল মানুষ নবজাতক থেকে শুরু করে বয়োবৃদ্ধের প্রাণ বাঁচাতে আপ্রাণ চেষ্টা করছে। তারা বিজ্ঞানী, তারা পরীক্ষাগারের সহকারী, তারা স্বাস্থ্য সেবাদানকারী, তারা স্বেচ্ছাসেবক কিংবা টিকার পরীক্ষামূলক প্রযোগে নিজেকে দানকারী ব্যক্তিসহ আমার না জানা আরো কত মানুষ।

মায়ের কাছ থেকে শুনেছি আমি টিকা নিয়েছি আমাদেরই বাড়ির পাশের এক হাসপাতাল থেকে। সেখানে কর্তব্যরত সেবিকা প্রতিবারই যত্ন নিয়ে আমার টিকা দিতেন। বেশকিছু খেলনাও ছিল সেখানে। শিশুরা কান্না করলে তাদের এই খেলানা দেয়া হতো। আমিও টিকা নিতে গিয়ে কান্না করেছি। কে জানে হয়ত ভয়ে কিংবা খেলনা পাবার আশায়।

যিনি বা যারা আমাকে সুরক্ষিত করতে টিকা দিয়েছেন, কী নামে ডাকব তাদের জানি না। তাদের শ্রদ্ধা জানানোর সঠিক শব্দও আমার জানা নেই।

শুধু এটুকু বুঝতে পারি সমস্ত জীবনধরে তাদের ভালবাসলেও এ ঋণ শোধ হবে না। তাই নাম না জানা সে মানুষগুলোর জন্য ভালবাসা। অফুরন্ত ভালোবাসা।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.

সর্বাধিক পঠিত

No stories found.
bdnews24-web.quintype.io