পানির ফেরিওয়ালা

নিজের বয়সী কাউকে কষ্ট করতে দেখলে সেটা মনে বেশ আঘাত করে। 
পানির ফেরিওয়ালা

আমার বয়সী একটি ছেলেকে প্রায়ই দেখতে পাই রাজধানীর বনানী সিগনালে। সে গাড়িতে গাড়িতে পানি ও নানা কোমল পানীয় বিক্রি করে। আমার মনে হয়েছে সে মাথায় ১০/১৫ কেজির ওজন নিয়ে গাড়ির পেছনে দৌঁড়ায়।

একদিন তার সঙ্গে দুই-এক মিনিট কথা বলার সুযোগ হয় আমার। সে বলছিল, এই কাজ সে অনেক ছোটবেলা থেকেই করে। অভ্যস্ত হয়ে যাওয়ার ফলে তার কষ্ট হয় না।

মনোবিজ্ঞান পড়তে গিয়ে জেনেছিলাম, কিশোর বয়সে আমরা নিজেদের সক্ষমতা প্রমাণ করতে চাই। আমিও পারি এই বিষয়টি অন্যকে বোঝাতে চাই। হয়ত এই কারণেই শিশুটি বলেছে এই চ্যালেঞ্জিং কাজটি করতে তার কোনো কষ্ট হয় না।

কিন্তু আমার দৃষ্টিতে সে বেশ ঝুঁকিপূর্ণ কাজ করে। সে বারবার সড়ক পারাপার হচ্ছে, দীর্ঘক্ষণ রোদে কাজ করছে, কখনো চলন্ত বাসের পেছনে দৌড়াচ্ছে আবার চলন্ত বাস থেকে লাফিয়ে নেমেও যাচ্ছে। হঠাৎ যদি সে গাড়ির সামনে হোচট খেয়ে পড়ে যায়, এরচেয়ে বড় জীবন ঝুঁকি হয়ত আর কিছু হবে না।

সময়ের অভাবে জানা হয়নি তার দৈনিক উপার্জন কত আর কেনইবা সে স্কুলে না গিয়ে এই কাজে নেমেছে। কোনো শিশুই যে শখ করে বা আনন্দ নিয়ে এত পরিশ্রম ও ঝুঁকির কাজে নামবে না তা আমার বিশ্বাস।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.

সর্বাধিক পঠিত

No stories found.
bdnews24
bangla.bdnews24.com