আমার সৃজনশীলতা বিকাশে হ্যালো - hello
আমার কথা

ইফতেশাম ইসলাম (১২), ঢাকা

Published: 2021-04-01 19:09:52.0 BdST Updated: 2021-04-01 19:09:52.0 BdST

ঢাকার বিএএফ শাহীন স্কুল এন্ড কলেজের ষষ্ঠ শ্রেণির একজন ছাত্র। গত বছর করোনাভাইরাসের কারণে যখন স্কুল কলেজ বন্ধ হয়, তখন অবসর সময়টিতে মোবাইল গেমস থেকে বিরত থেকে লেখালেখির জন্য একটা প্লাটফর্ম খুঁজতে থাকি।

অনেক সময় ভেবেছি যে এত ছোট বয়সে কি আমি লেখালেখির কোনো সুযোগ পাব? কিন্তু হাল ছাড়িনি। প্রায় দীর্ঘ দীর্ঘ মাস পড়াশোনার পাশাপাশি ঘরবন্দি সময়ে অনলাইনে ল্যাপটপ নিয়ে প্লাটফর্ম খুঁজতাম। অবশেষে ইউনিসেফের এক সাইটে দেখা পেলাম হ্যালো ডট বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের। দেখলাম এক শিশু সাংবাদিকতার প্লাটফর্মে ১৮ বছর বয়সের নিচে শিশু সাংবাদিক নিচ্ছে। খুব খুশি হয়ে সাথে সাথে আবেদন করলাম।

তারপর দিন আসল হ্যালোর ফোন। খুব ভয়ে ভয়ে ফোন রিসিভ করলাম। হ্যালো থেকে বলল যে আমি শিশু সাংবাদিক হয়েছি। আনন্দে আত্মহারা হয়ে উঠলাম। তার কিছু দিন পর আমার হ্যালো থেকে মেইল আসে। সেখানে লেখা ছিল আমি তাদের একটি অনলাইন লাইভে যুক্ত হতে পারব কিনা। আমি তো মহাখুশি! তো আমি লাইভে যুক্ত হলাম, সেখানে অনেক কিছু শিখলামও।

তারপরই আমি হ্যালোতে নিয়মিত লেখা শুরু করি। আমার মতো অনেকেরই হয়তো লেখালেখির আগ্রহ থাকলেও প্ল্যাটফর্ম না থাকায় লিখতে পারছিল না। আমি বলব তাদের সৃজনশীলতা প্রকাশে হ্যালো সাহায্য করেছে।

হ্যালো এমন একটি চমৎকার সুযোগ করে দিয়েছে যে, শুধু বড়রাই নয় এখন দেশের ১৮ বছর বয়সের নিচে সকলেই শিশু সাংবাদিক হতে পারে।

হ্যালো আমার পরিবারের একজন, যেভাবে একটি পরিবারের সাথে যুক্ত থাকে বহু কাল সেভাবেই আমিও হ্যালোর সাথে যুক্ত থাকতে চাই আগামীর দিনগুলিতে।

Print Friendly and PDF

সর্বাধিক পঠিত