আমার কথা

আশিকুজ্জামান আশিক (১৬), রাজশাহী

Published: 2020-03-21 19:56:42.0 BdST Updated: 2020-03-21 19:56:42.0 BdST

আমার মা রাজশাহী মেডিকেল কলেজের একজন সিনিয়র স্টাফ নার্স।। তার মতো ১২০০ নার্স কর্মরত রয়েছেন এই হাসপাতালে। তাদের প্রতিদিন অসংখ্য রোগীর কাছে যেতে হয়। কিন্তু করোনাভাইরাস থেকে নিরাপত্তার জন্য মাস্ক ও মাথায় দেওয়া টুপি ছাড়া কিছুই দেওয়া হয়নি তাদের।

কিছুদিন আগে করোনাভাইরাসের কারণে নিজেদের নিরাপত্তার জন্য ইন্টার্ন চিকিৎসকগণ ধর্মঘট করেন। পরে কর্মে ফেরানোর জন্য শুধু মাস্ক ও মাথায় দেওয়া টুপির ব্যবস্থা করা হয়। তারা কি আদৌও এই পোষাকের মাধ্যমে করোনাভাইরাস থেকে নিরাপদে থাকতে পারবে?  

ইতালিতে করোনাভাইরাসের কারণে এতো মৃত্যু এবং আক্রান্তের অন্যতম কারণ হলো চিকিৎসা বিভাগের অসেচতনতা। সেখানকার অনেক চিকিৎসক নিজেই আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের থেকে ছড়িয়ে যাচ্ছে করোনাভাইরাস।

দেশে এ নিয়ে ব্যাপক সচেতনতা তৈরি হলেও নেই দেখার মতো কোনো পদক্ষেপ। শুনলাম ঢাকা মেডিকেল কলেজের চার চিকিৎসক কোয়ারেন্টাইনে আছেন। এমন চলতে থাকলে অন্যান্য রোগের রোগীকেও তো চিকিৎসা দেওয়ার জন্য ডাক্তার খুঁজে পাওয়া যাবে না।

আবার এই মহামারী রোগের কারণে সকল প্রকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ব্যতীত তেমন কিছুই বন্ধ দেওয়া হয়নি। গার্মেন্টস ও শিল্পকারখানার শ্রমিকরা কাজ না করলে তো তাদের বেতন দেওয়া হবে না। তাই তারা ঝুঁকি নিয়েই কাজ করে যাচ্ছে।

বাস চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে অনেক জায়গায়। সেখানকার চালক, চালকের সহকারী কী খেয়ে বেঁচে থাকবেন তার কি কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে? 

কেনো এতো গোলমেলে সবকিছু?

আজ বড্ড বেশি বেশি মনে পড়ছে বাঙালির চলে যাওয়া সেই নেতা, জনগণের বন্ধু বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। তিনি থাকলে হয়ত আজ অনেক কিছুই অনেক রকম হতো। নিরাপদে নেই আমার মা, আমার ভাই, আমার বাবা, নিরাপদে নেই হাজারো মানুষ।

Print Friendly and PDF

সর্বাধিক পঠিত