আমার কথা

তাসনুভা মেহ্জাবীন (১২), খুলনা

Published: 2019-11-27 17:30:31.0 BdST Updated: 2019-11-27 17:30:31.0 BdST

মোমের জাদুঘর বলতেই আমাদের মাথায় চলে আসে মাদাম তুসোর জাদুঘরের কথা। সেখানে রয়েছে বিখ্যাত ব্যক্তির মোমের তৈরি মূর্তি, যা দেখতে আসল লাগে। এরকম জাদুঘর ঘুরে দেখতে পাওয়াটা সৌভাগ্য ও আনন্দের ব্যাপার।

সম্প্রতি আমার একটি মোমের জাদুঘর ঘুরে দেখার সৌভাগ্য হয়। তবে মাদাম তুসো নয়, কলকাতার মাদার ওয়াক্স মিউজিয়াম। 

চিকিৎসার উদ্দেশ্যে ভারতে গিয়েছিলাম কয়েক মাস আগে, আমি, আমার ছোট বোন ও মা। কাজ শেষে হাতে একদিন ছিল, তাই সিদ্ধান্ত নেওয়া হলো মাদার ওয়াক্স মিউজিয়াম থেকে ঘুরে আসার। 

দুপুর এগারোটার দিকে কলকাতার নিউ টাউনে অবস্থিত মাদার ওয়াক্স মিউজিয়ামে পৌঁছে গেলাম। বিশাল ভবনের পঞ্চম ও ষষ্ঠ তলায় অবস্থিত জাদুঘরটি। 

জাদুঘরে ঢুকে গেলাম অতি উৎসাহের সাথে। ঢুকে প্রথমেই চোখে পড়ে মহাত্মা গান্ধী, স্বামী বিবেকানন্দ ও মাদার তেরেসার ভাস্কর্য। এছাড়া এপিজে আব্দুল কালাম, নেতাজি সুভাষচন্দ্রও ছিলেন। 

চোখে পড়ল বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিও, গর্বিত বোধ করলাম! আমাদের প্রাপ্য সম্মানটুকু যে দিয়েছে তারা। 

এছাড়া কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলাম, মান্না দে, হেমন্ত রায়, লতা মঙ্গেশকর, আইনস্টাইন, জগদীশচন্দ্র বসু, বিরাট কোহলি, কপিল দেব, মেসি, সত্যজিৎ রায়, ফেলুদা, শাহরুখ খান, সালমান খান, মিঠুন, অ্যাঞ্জেলিনা জোলি, জনি ডেপ, ব্রুস লি ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর, শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়, রাজা রামমোহন রায়, হ্যারি পটার, অ্যাভাটার, কার্টুনের বিভিন্ন চরিত্রসহ আরো অনেকে। 

আরো ছিল ভূতের অংশ। সেখানে দ্য কনজিউরিং, অ্যানাবেল ডল, নান এর মত ভৌতিক চরিত্রগুলোও রাখা হয়েছে। এছাড়া ছিল ভিজ্যুয়াল ট্যাটুর অংশ। প্রজেক্টর দিয়ে নানা নকশা কালো পর্দায় ফেলার মাধ্যমে সেখানে দাঁড়িয়ে ট্যাটুর মতো করা যায়। 

প্রতিটি মূর্তির পাশে একটি স্ক্রিনে তার সম্পর্কিত কোনো ভিডিও এবং মিউজিক চলছিল যা আরো বেশি আকর্ষণীয় করে তুলেছিল। 

তবে আমাদের সাকিব আল হাসান, রোনালদো-নেইমার, বেগম রোকেয়া মতো অনেকের না থাকার কারণও বুঝতে পারিনি। 

বেশিরভাগ মূর্তিই সুন্দর ছিল, নিঁখুত না হলেও ব্যক্তিত্ব ফুটিয়ে তোলাটা অনেকটা হয়েছিল। তবে কিছু প্রতিকৃতিতে কাজটা ভালো হয়নি। তবুও সময়টা খুবই আনন্দে কেটেছে।

Print Friendly and PDF

সর্বাধিক পঠিত