আমার কথা

শাহীন আলম (১৭), সাতক্ষীরা

Published: 2019-07-02 18:17:32.0 BdST Updated: 2019-07-02 18:17:32.0 BdST

প্রতিদিন কোথাও না কোথাও ধর্ষণ, হত্যা, খুন, গুমের ঘটনা ঘটছে। কেউ বিচারের আওতায় আসছে কেউ বা ধরা ছোঁয়ার বাইরে চলে যাচ্ছে। তবে বিচারের আওতায় কজন আসছে তা আদতে চোখেই পড়ে না।

কদিন আগেই ভর দুপুরে বরগুনায় প্রকাশ্যে স্ত্রীর সামনে কুপিয়ে মেরে ফেলা হলো রিফাত নামের এক যুবককে। নিজের চোখের সামনে স্বামীর করুণ দশা, স্ত্রীর কিছু না করতে পারা কতটুকু যন্ত্রণার সেটা যার সাথে ঘটেছে সেই ভালো জানে।

অতীতের কথা যদি একটু মনে করি তাহলে দেখতে পাবো বিশ্বজিৎ, অভিজিৎ, অনন্ত বিজয় হত্যাকাণ্ড। নাহ এভাবে গুনে শেষ হবে না। এসবের শাস্তি আসলে কী হয়েছে?    

সিলেটের বদরুল খোদেজাকে দিন দুপুরে এলোপাথাড়ি কুপিয়েছিল। মেয়েটা মরতে মরতে বেঁচে গিয়েছে। বদরুলের কী বিচার হয়েছে? নারায়ণগঞ্জের সাত খুন মামলার আসামির বিচারেরই বা কী অবস্থা? আমরা বড়দের ব্যাপারে কথা বলি না। কিন্তু বড়দের কাছ থেকে আমরা আসলে কী শিখছি তা নিয়ে আমি এখন খুবই চিন্তিত।

আমরা এমন একটি দেশে জন্মেছি যে দেশে প্রকাশ্যে খুন হয়ে যায়। আমরা মানববন্ধন করি, ফেইসবুকে পোস্ট দেই; তাতে অপরাধীর কী সাজা হয়?

যতদিন বিচার প্রক্রিয়া সুষ্ঠভাবে সম্পন্ন না হবে ততদিন এমন ঘতনা ঘটতেই থাকবে, আর আমরা বেড়ে উঠব অসুস্থ এক পরিবেশে।

ততদিনে ক্রসফায়ারের জনপ্রিয়তা বাড়বে। আর বন্দুক যুদ্ধের নামে মানুষ হত্যাও বন্ধ হোক। বিচার হোক, অপরাধীর শাস্তি হোক। এক দেশে দুই রকম বিচার চলতে পারে না।

শেষ পর্যন্ত প্রচলিত বিচার ব্যবস্থায় আস্থা রাখতে চাই। চাই বটে, কিন্তু আমি জানি, বিশ্বজিৎ হত্যার ন্যায়বিচার হয়নি বলেই রিফাত হত্যা ঘটেছে। আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা না হলে, বিচারহীনতার সংস্কৃতি থেকে বেরোতে না পারলে; এ ধরনের সহিংসতা চলবেই। কয়েকদিন আমরা ফেইসবুকে বিপ্লব করবো, তারপর আবার ঝাঁকের কই ঝাঁকে মিশে যাবো।

Print Friendly and PDF

সর্বাধিক পঠিত