আমার কথা

প্রিয়াংকা ভদ্র (১৪), সিরাজগঞ্জ

Published: 2019-04-25 18:53:00.0 BdST Updated: 2019-04-25 18:53:33.0 BdST

এই সড়ক দুর্ঘটনা যেন নিত্যদিনের সঙ্গী হয়ে পড়েছে। টেলিভিশন বা খবরের কাগজ খুললেই প্রথমে পাওয়া যায় সড়ক দুর্ঘটনার খবর।

আমরা যদি সড়ক দুর্ঘটনার বিষয়ে একটু ভেবে দেখি তাহলে আমরা বুঝতে পারব সড়ক দুর্ঘটনা হওয়ার মূল কারণ কোনটি। সড়ক দুর্ঘটনার জন্য আমরা সব সময় গাড়ির চালককে দোষারোপ করে থাকি। কিন্তু সত্যিই কি এই সড়ক দুর্ঘটনা ঘটানোর জন্য একমাত্র দোষী এই গাড়ি চালক?

সব দুর্ঘটনার জন্য কি সর্বদাই এই গাড়ি চালকই দায়ী হয়? অনেক সময় এর জন্য দায়ী থাকি আমরা এবং আমাদের অসাবধানতা। আমরা অনেকেই এখনও সড়কে চলাচলের সব নিয়ম জানি না। বিশেষ করে আমাদের মতো শিশুরা, যারা এখনও জানে না কীভাবে রাস্তা পারাপার হতে হয়।

অনেক ক্ষেত্রে তাড়াতাড়ি করে রাস্তা পার হতে দেখা যায় অনেককে, যা সড়ক দুর্ঘটনা ডেকে আনে। আবার জেব্রা ক্রসিং এবং ওভার ব্রিজ থাকার পরও কিছু কিছু সাধারণ মানুষ তা ব্যবহার করছে না। আবার অনেকে দৌড়ে রাস্তা পার হচ্ছে। আবার অনেকে ভিড়ে অধিক সময় নষ্ট করে অসহ্য হয়ে পড়ে। কারণ অধিক ভিড়ে অধৈর্য হয়ে পড়ে গাড়ি চালককে আমরাই অনেক সময় প্রতিযোগিতা করে গাড়ি চালাতে বলি। হ্যাঁ অতিরিক্ত ভিড় বিরক্তির সৃষ্টি করে কিন্তু এখানে আমাদেরকে খাপ খাওয়াতে হবে।

এছাড়াও রাস্তায় ফোন চালাতে চালাতে রাস্তা পারাপার হওয়া ইত্যাদি ও বিশেষভাবে দায়ী এই সড়ক দুর্ঘটনার জন্য।

বিশেষ করে শিশুদেরকে এসকল বিষয়ে সচেতন করতে হবে। শিশুদেরকে যদি এ বিষয়ক বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে সড়কে চলাচলের নিয়ম শেখাতে হবে। এজন্য সরকারকে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিতে হবে। সচেতন হতে হবে সরকারকে, বাবা মাকে এবং আশে পাশের সকল মানুষদেরকে। কারণ শিশুরা তো বড়দের থেকেই সব শিখবে। বড়রা যদি অসাবধান থাকে তাহলে শিশুরাও এ বিষয় সম্পর্কে কীভাবে সচেতন হবে?

এছাড়া  ধৈর্যশীল হতে হবে আমাদের সবাইকে। সবসময় সড়ক দুর্ঘটনার জন্য গাড়ি চালককে দোষারোপ না করে বসে ভাবি আমরা কতটুকু এ বিষয় সম্পর্কে সচেতন। নতুন কিছু ভাবা যাক। দৃষ্টিভঙ্গি একটু পরিবর্তন করা যাক। প্রতিটি পদক্ষেপের আগে একবার হলেও ভাবা যাক। সচেতন হোক সবাই, রোধ হোক সড়ক দুর্ঘটনা।

Print Friendly and PDF

সর্বাধিক পঠিত
  • রেলক্রসিংয়ের নারী গেটম্যানের গল্প

    নগরীর ভদ্রা রেলক্রসিংয়ে লাল-সবুজ রঙের দুটো পতাকা হাতে নিয়ে ছুটোছুটি করছেন তানজিলা খাতুন। বয়স কুড়ি পেরোয়নি। কিন্তু কাজের মাধ্যমে তিনি বয়সকে ছাড়িয়ে গেছেন।

  • তীব্র গরমে অসুস্থ হয়ে পড়ছে ঝালকাঠির শিশুরা (ভিডিওসহ)

    মাত্র একদিনের বিরাম দিয়েই আবারও কাঠফাঁটা রোদ আর তীব্র তাপদাহে পুড়ছে দক্ষিণ জনপদ ঝালকাঠি। জেলা জুড়ে অসহনীয় গরমে মানুষজন অসুস্থ হয়ে পড়ছে। বাড়তি চাপে হাসপাতালে রোগীর চাপ বেড়েই চলছে, অনেকের ঠাঁই হচ্ছে মেঝেতে।

  • যৌন নিপীড়ন ও শিশু

    অন্য সকলের মতো সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠে, পড়ার ফাঁকে সময় পেলে টিভি দেখাটা আমার অভ্যাস।