আমার কথা

মাহেদুল ইসলাম (১৪)

Published: 2018-12-18 18:08:59.0 BdST Updated: 2018-12-18 18:08:59.0 BdST

আমি যখন কোনো সিনেমা বা নাটক দেখি, তখন নিজেকে সিনেমার মূখ্য অভিনেতার জায়গায় বসাই।

তারপর সিনেমা বা নাটক উপভোগ করি। সিনেমা বা নাটক ছাড়াও আরেকটা জায়গা আছে যেখানে নিজেকে মূখ্য চরিত্রে বসাতে ভালো লাগে। আর সেটা হচ্ছে বই। গল্প, নাটক, উপন্যাস যে ধরনের বই পড়ি না কেন, সেখানে মূখ্য চরিত্রটাই বেছে নিই নিজের জন্য।

বই পড়ার শখটা আমার ছোটবেলে থেকেই। কিন্তু বই কেনার মতো সামর্থ্য ছিল না। তার মানে এই নয় যে টাকার অভাবে বই কিনতে পারি নি। আসলে আমি যে জাযগাটায় বেড়ে উঠেছি সেখানে আশেপাশে গল্প, নাটক, উপন্যাস কোন প্রকারের বই পাওয়া যেত না। এমন কী কোনো লাইব্রেরিও ছিল না। যদিও আমি বই প্রেমি, তাই বলে শহর থেকে বই কিনে এনে পড়ার মতো এত বড় শখ আমার ছিল না।

বর্তমানে আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা এমন হয়েছে যে পাঠ্যপুস্তক ছাড়া বাইরের বই কেউ পড়তেই চায় না। কারণ সবাই চায় পাশ করতে, ভালো রেজাল্ট করতে। কিন্তু তাদের এই জ্ঞানটা মনে হয় হয়নি যে পাশ করা আর শিক্ষিত হওয়া এক জিনিস নয়।

লেখাপড়ার মানে হচ্ছে জ্ঞান অর্জন। কিন্তু বর্তমানে সেটা হয়ে গেছে সার্টিফিকেট অর্জন। আমার মতে পরিক্ষার রেজাল্ট দিয়ে কার মেধা কতটুকু সেটা যাচাই করা যায় না।

তা যাই হোক  বলছিলাম আমার বই পড়ার গল্প। তো কী আর করা। এর ওর কাছ থেকে বই চেয়েয় পড়তাম। এরপর পরিচয় হলো ইন্টারনেটের সঙ্গে। আর সেখান থেকেই জানতে পারি ই-বুকের কথা। নামটা হয়তো সবার পরিচিত। ই-বুক হচ্ছে মুদ্রিত বইয়ের ইলেক্ট্রনিক রূপ। কিন্তু বর্তমানে সে কথা মানতে অনেকেই নারাজ। কারণ বর্তমানে এমন অনেক ই-বুক অনলাইনে আসছে যেগুলোর মুদ্রিত রূপ নেই।

ই বুকের মাধ্যমেই বই পড়ার এই ছোট শখটা পূরণ হলো। এখন আমি ইন্টারনেট থেকে আমার পছন্দের বইগুলো ডাউনলোড করে পড়তে পারি। সেই সাথে নিজেকে বসাতে পারি মূখ্য চরিত্রের জায়গায়।

Print Friendly and PDF

সর্বাধিক পঠিত