আমার কথা

নূশরাত ইসলাম তৃষা (১৩), বাগেরহাট

Published: 2018-12-02 21:36:33.0 BdST Updated: 2018-12-02 21:36:33.0 BdST

আমি খুব ভালো লিখতে পারি তা নয়। তবে চাই আমি একদিন খুব ভালো লিখব।

আমার এই লেখালেখি করার বা সাংবাদিকতা করার ইচ্ছের পেছনে একটা কারণ আছে।

আমার চাচা সরদার ইনজামামুল হক। তাকে আমি কাকু ডাকি। আমার কাকু পেশায় একজন সাংবাদিক। তিনি খুব ভালো মানুষ। সবাই কাকুকে খুব ভালোবাসে, বিশ্বাস করে, ভরসা করে।

আমার ছোটোবেলা থেকেই শখ আমি বড় হয়ে ইনজাম কাকুর মতো হব। কাকুর মতো ভালো মানুষ হব। তখন থেকেই কাকুর আদর্শকে নিজের মধ্যে ধারণ করতে চেষ্টা করি।

তিন চার বছর আগেও আমি এমন ছিলাম যেন ঈদে আমার একাধিক নতুন জামা লাগবেই। কাকুকে দেখে শিখেছি। ঈদে নতুন জামা পরায় যতটা আনন্দ তার থেকে বেশি আনন্দ পাওয়া যায় যদি কেউ আমার জন্য ঈদের দিনে একটা নতুন জামা পরতে পারে। 

আমরা অনেক সময়ে দেখি রাস্তার পাশে কিছু লোক ডাস্টবিন পরিষ্কার করছে। আমরা অনেকেই দুর্গন্ধে নাক চেপে সেখান থেকে চলে যাই, থুথু ফেলি। একদিন কাকুর সাথে চলতে গিয়ে এমনটাই করি আমিও। তখন কাকু আমাকে বলেন, “যারা এই ময়লা পরিষ্কার করছেন তারা কতটা সময় ধরে দুর্গন্ধ সহ্য করে বলতো?”

“তারা যদি এটা পরিষ্কার না করতো তা হলে আমাদেরই পরিষ্কার করতে হতো। তা হলে তারা আমাদের এতো বড় উপকার করার পরেও প্রতিদানে আমরা তাদের সন্মানে এতোটুকু কি করতে পারি না? তাদের সামনে এভাবে থুথু ফেলব না বা নাক চেপে চলব না।”

কাকুর কথায় আমি ভাবনায় পড়ে গেলাম। আসেলেই তারা আমাদের কতটা উপকার করেন।

একজন কৃষক, শ্রমিক, রিকশা চালক বা একজন গৃহপরিচারিকার সংগে হয়তো আমরা অনেকই বাজে ব্যবহার করি। আমার কাকু বলেন, “আমার থেকে কম উপার্জন করে তাকে যদি আমি তুই করে বলি। তবে যে আমার থেকে বেশি উপার্জন করে তারও আমাকে তুই করে বলা উচিত। কিন্তু এটা আমাদের কেমন লাগবে।”

কাকুর মতো তাই আমিও প্রাপ্য সন্মান দিয়ে কারো সাথে কথা বলতে চেষ্টা করি। কাকুর লেখা সংবাদগুলো পড়ি। কাকুর লেখাগুলো পড়ে নিজের মতো করে লেখার চেষ্টা করি। 

মনে মনে খুব গর্ব হয় বাগেরহাটের সবার ভালোবাসার সরদার ইনজামামুল হক আমার কাকু। আমি নিজেকে এমন ভাবে তৈরি করতে চাই যেন আমার প্রিয় কাকুও একদিন আমাকে নিয়ে এমন গর্ব বোধ করেন। এটা আমার স্বপ্ন। আর আমার এই  ছোট ছোট  স্বপ্ন পুরণে কাকুর অবদান অপরিসীম।

Print Friendly and PDF

সর্বাধিক পঠিত