আমার কথা

তাসফিয়া জিন্নাত নুবিয়া (১৫), ভোলা

Published: 2018-06-26 20:34:48.0 BdST Updated: 2018-06-26 20:48:37.0 BdST

জীবনটাই নানান অভিজ্ঞতা আর স্মৃতি দিয়ে জুড়ে থাকে। তেমনি আমার এই ছোট জীবনে একটি বড় অভিজ্ঞতা বা স্মৃতি রয়েছে। শুধুই স্মৃতি নয়, সঙ্গে আছে নতুন ধরনের শিক্ষা, কাজ, প্রশিক্ষণ ইত্যাদি।

আমার বাড়ি ভোলা জেলার চরফ্যাশন উপজেলায়। যে বিদ্যালয়ে আমি পড়ি, নামটা না বললেই নয়, কারণ, এখান থেকেই সুযোগ হয় আমার এ অভিজ্ঞতাটা অর্জন করার। তাই চরফ্যাশন ট্যাফনাল ব্যারেট মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয় নামের স্কুলের প্রতিও আমি কৃতজ্ঞ, যেমন কৃতজ্ঞ হ্যালো নামে শিশুদের একটি ওয়েবসাইটে প্রশিক্ষণের সুযোগ করে দেওয়ায়।

আমাদের জীবনের বেশিরভাগ সময়েই বলতে গেলে কেটে যায় পড়াশোনা করতে করতে। এর মাঝে ভাগ্যবানদের থাকে কিছু অন্যরকম অভিজ্ঞতা আর স্মৃতি। সেরকম এক অভিজ্ঞতার কথাই আজ হ্যালোর সাইটে শেয়ার করছি।

প্রথমেই বলে নিই হ্যালোর কথা। বাংলাদেশের প্রথম অনলাইন নিউজ পোর্টাল বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমে শিশুদের জন্য নির্ধারিত এই সেকশানের নাম হ্যালো ডট বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

দেশ-বিদেশের শিশুদের বাংলায় মত প্রকাশের প্ল্যাটফর্ম এই হ্যালো। এখানে শিশুরাই শিশুদের কথা তুলে ধরে। হোক সে আনন্দের বা বেদনার কিংবা শিশুদের স্বার্থ নিয়ে দেশ-বিদেশের খবর, ছবি, প্রতিবেদন, ক্যামেয়ায় তোলা ছবি সংবাদ, অংকন, পরামর্শ।

ছোটবেলা থেকেই সাংবাদিকতা বিষয়ে আমার একটা বিশেষ আগ্রহ ছিল। তবে কোনোদিনও ভাবিনি যে সেই সুযোগটা এতো তাড়াতাড়ি পেয়ে যাবো।    

হ্যালোর উদ্যোগে ও আন্তর্জাতিক শিশু তহবিল সংস্থা ইউনিসেফের সহায়তায় ভোলা জেলায় দুই দিনের শিশু সাংবাদিকতার প্রশিক্ষণের আয়োজন করা হয়। সৌভাগ্যক্রমে আমিও সুযোগ পেয়েছিলাম সেখানে অংশ নেওয়ার। অভিজ্ঞতাটা যেমন হবে ভেবেছিলাম, হয়েছিল তার থেকেও বেশি আনন্দময় আর মজার।  

একজন সাংবাদিক হওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় সব জিনিসই আমরা শিখতে পেরেছি। কীভাবে কোনো ঘটনার ওপর রিপোর্ট, ভিডিও স্টোরি করতে হয় তাও হাতেকলমে শিখেছিলাম আমরা।    

দুটো দিন যে এতো তাড়াতাড়ি পেরিয়ে যাবে বুঝতেই পারি নি। প্রশিক্ষণের শেষদিনের ঠিক শেষ মুহূর্তে সত্যিই ভীষণ খারাপ লেগেছিলো এটা ভেবে, যে আবার কবে এরকম সুযোগ পাবো!  

বাসায় ফিরে নানান কিছু ভাবতে ভাবতে বড্ড অবাক হলাম, প্রশিক্ষকরা এতো কষ্ট করলেন আমাদের জন্য, এতো কিছু শিখলাম আমরা, এতো সুন্দর একটা অভিজ্ঞতা অর্জন করতে পারলাম কিন্তু একটা ধন্যবাদ তো দিতে পারলাম না তাদের। মনটা সত্যিই খুব খারাপ হয়ে গেছিলো  সেদিন।  

সময় যেমন থেমে থাকে না, আমাদের কারো জীবনই তেমন থেমে থাকে না। দিনগুলো হয়তো পুরনো হবে, কিন্তু তাদের দিয়ে যাওয়া শিক্ষা ও অভিজ্ঞতা পুরনো হবে না। জীবনে যদি আরেকটা সুযোগ পেতাম, তাহলে হয়তো হাজার হাজার শ্রদ্ধাভরা একটা ধন্যবাদ ওই স্যারদের দিতাম।

শুধু মাত্র এই অভিজ্ঞতাটার জন্য নয়, এতো বড় সুযোগটা দেওয়ার জন্যও। আমার ছোটো জীবনের একটি বড় অভিজ্ঞতার এটিই সেই ছোট গল্প। আর সেটা করার সুযোগও পেয়ে গেলাম এ লেখার মাধ্যমে। প্রশিক্ষকসহ আয়োজকদের সবাইকে জানাই, সালাম, শ্রদ্ধা আর কৃতজ্ঞতা!

 

Print Friendly and PDF

সর্বাধিক পঠিত
  • আমার ভালোবাসা

    মানুষের জীবনে নিজের কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জিনিস হলো তার নাম। নাম দিয়েই আমরা একজন থেকে আরেকজনকে আলাদা করে চিনতে পারি। আর নিজের নাম ভালোবাসে না বা অন্যের মুখে সে নাম শুনলে ভালো লাগে না এমনটি হতে পারে খুব কম।

  • বগুড়ায় এডওয়ার্ড পার্ক শিশুদের প্রিয় জায়গা (ভিডিওসহ)  

    শিশু-কিশোরসহ বড়রাও বেড়াতে ভালোবাসেন বগুড়া এডওয়ার্ড পার্কে।

  • একাধিক শিশু জন্মানোর ঝুঁকি ও সতর্কতা (ভিডিওসহ)

    প্রায়ই আমরা জমজশিশু জন্মাতে দেখি। কখনো কখনো দুইয়ের বেশি শিশু প্রসব করার ঘটনাও শোনা যায়। সম্প্রতি টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে কুমুদিনী হাসপাতালে পরপর তিন নবজাতকের জন্ম দেন বানাইল গ্রামের সুবর্ণা বেগম।