আমার কথা

শ্রেয়া ঘোষ (১৪), নীলফামারী

Published: 2017-12-10 21:27:38.0 BdST Updated: 2017-12-10 21:34:32.0 BdST

সংগৃহীত
ছোটবেলা থেকেই দেখে বড় হচ্ছি, পরিবার, সমাজ, রাষ্ট্র সবখানেই মেয়েদের বোঝা হিসেবে দেখা হয়! তখন থেকেই ভাবতাম, আমি মেয়ে হিসেবেই উঠে দাঁড়াব। ছেলেদের সমকক্ষ নয়, মানুষ হব।

আমি দেখেছি, পরিবারে সন্তান জন্মের আগে সবাই আশা করে থাকত, যেন সন্তানটি ছেলে হয়। আশা নয় বরং এই নিয়ে গর্ভবতীকে মানসিক অত্যাচারও করা হতো!

জন্মলগ্নে যখন পুত্রের বদলে কন্যার জন্ম হতো, সেদিন থেকেই শুরু হয়ে যেত মা ও মেয়ের বেঁচে থাকার লড়াই। কন্যা সন্তানের মাকেও লাঞ্ছিত হতে দেখেছি। শুনেছি অনেক। পড়েছি তার চেয়ে বেশি!

একটি মেয়ের জীবনে সবথেকে বড় সম্পদ হলো তার বাবার ভালোবাসা। মেয়ে হয়ে জন্মেছে বলে পিতাও মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন, এমন ঘটনা আমাদের সমাজে ঘটছে ভুরি ভুরি!  

অনাদরে অবহেলায় একদিন সেই মেয়েটিও বড় হয়। তাতে করে তার ওপর অত্যাচার কমে না বরং বাড়ে!

বাধা বিপত্তি পেরিয়ে শিক্ষার আলো দেখার সুযোগ পেলেও মাঝ পথে এসে সেই উজ্জ্বল পথকে করে দেওয়া হয় অমানিশার অন্ধকারের মতো কালো!  কিশোরী হয়ে উঠতেই তার বিয়ের কথা ভাবা হয়। হয়ত তখনও সে ঋতুমতী হয়ে ওঠেনি।

তারপরের অধ্যায়টা নরক সমতুল্য! স্বামীর অত্যাচার, কম বয়সে মা হওয়ায় বিভিন্ন শারীরিক সমস্যা তার জীবনটা ছারখার করে দেয়। পরিশেষে তার নির্বাসন ঘটে তালাক, বিচ্ছেদ বা মৃত্যুর মাধ্যমে।

এটাই কী একটা মেয়ের জীবন? কী পায় সে একটি জীবনে? শুধু অত্যাচার, কষ্ট আর মেয়ে হয়ে জন্মানোর অনুতাপই কী তার জীবনের প্রাপ্তি?

আমি একজন কিশোরী। আমি জানি মেয়েরা মানুষ। মেয়েরা সম্পদ। এই মেয়েরাও করেছে এভারেস্ট জয়। করছে দেশ পরিচালনা। এরাও ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে ভূমিকা রেখেছিল। মেয়েরা এখন বিভিন্ন মাল্টি ন্যাশনাল কোম্পানির প্রধান। নাসায় কাজ করছে তারাও।

মেয়েরা ছাড়া মানুষ শব্দটিই অসম্পূর্ণ। মেয়েরাই আজ পুরুষের কাঁধে হাত রেখে সমান তালে এগিয়ে চলছে দুর্বার গতিতে!

আমি মেয়ে তাই আমি গর্বিত! ছেলেদের সমান নয়, আমি মানুষের উচ্চতায় উঠতে চাই।

Print Friendly and PDF

সর্বাধিক পঠিত