খবরাখবর

শাকিলুর রহমান (১৪), মাগুরা

Published: 2017-04-05 20:51:24.0 BdST Updated: 2017-04-05 21:36:58.0 BdST

মাগুরা জেলার মহম্মদপুর উপজেলার দীঘা ইউনিয়ানের পাল্লা বাজার থেকে বাবুখালি পর্যন্ত প্রায় ১৬ কিলোমিটার ইটের রাস্তা চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে।

সম্প্রতি সরেজমিনে দেখা যায়, রাস্তার প্রায় সব ইট উঠে গেছে। ইটের রাস্তা ভেঙে তৈরি হওয়া বড় বড় গর্ত চলাচলকে আরও দুর্বিষহ করে তুলেছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ মাঝে মাঝেই এই রাস্তায় কেউ না কেউ দুর্ঘটনার কবলে পড়ে।

পাল্লা বহুমুখী স্কুল এন্ড কলেজের দশম শ্রেনির ছাত্র মোহাম্মদ রহমতুল্লাহ হ্যালোকে বলে, “আমার বাড়ি থেকে স্কুল প্রায় তিন কিলোমিটার দূরে। এই তিন কিলোমিটার পথ আমাকে হেঁটে যেতে হয়, ভাঙা রাস্তা বলে ভ্যান পাওয়া যায় না।”

হাজী আব্দুর রহমান আব্দুর করিম ডিগ্রী কলেজের ছাত্র ইমরান হোসেন খুব তাড়াতাড়ি রাস্তাটি মেরামতের অনুরোধ করেন।

এ রাস্তার নিয়মিত ভ্যান চালক ইমরান মোল্লা হ্যালোকে জানান, এই ভাঙা রাস্তায় প্রায়ই দুর্ঘটনার কবলে পড়তে হয় তাদের। এতে ভ্যানেরও ক্ষতি হয়।

পথচারী মনিরুল মোল্লা বলেন, “আমি খুব অসুস্থ । তবুও পায়ে হেঁটেই বাড়ি যাচ্ছি। কোনো ভ্যান নেই রাস্তায়। বেশি টাকা দিতে চাইলেও কেউ যেতে চায় না সচরাচর।”

এই বিষয়ে বাবুখালি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মির সাজ্জাদ হোসেন বলেন, “রাস্তাটা ভাঙা। এরপরও আমরা কিছু করতে পারছি না। এটা করতে হলে অনেক বড় বাজেট লাগবে।”

তবে এলজিইডি চাইলেই রাস্তা ঠিক করতে পারে জানিয়ে তিনি বলেন, “আমি রাস্তার দুপাশে মাটি ফেলে দিতে পারি। এই রাস্তার কথা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে বলব।”

এ বিষয়ে মহম্মদপুর উপজেলা প্রকৌশলী মোহাম্মদ রবিউল ইসলাম মুঠোফোনে হ্যালোকে বলেন, “ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হবে যাতে তাড়াতাড়ি ব্যবস্থা নেওয়া যায়।”

Print Friendly and PDF

সর্বাধিক পঠিত
  • আনুমানিক দুইশ বছরের পুরনো আমগাছ

    ঠাকুরগাঁও জেলায় প্রায় দুই বিঘা জুড়ে আছে একটি আমগাছ। দেখলে মনে হয় বিরাট এক আম বাগান। কিন্তু অবিশ্বাস্য হলেও সত্য, এই মহীরূহের বয়স আনুমানিক দুইশ বছরের কম নয়।

  • ধিক্কার: বঙ্গবন্ধু হত্যার খবরকে অবহেলা করেছিল যারা

    শুধু রাজনীতি নয়, সংবাদপত্রের কাজের সঙ্গেও বঙ্গবন্ধুর সম্পৃক্ততা ছিলো। জীবনের কর্মযজ্ঞে কখনও পত্রিকার মালিক, কখনও সাংবাদিক, কখনও পূর্ব পাকিস্তান প্রতিনিধি, কখনও বা পরিবেশক ছিলেন তিনি। দরকারে হকারিও করেছেন।

  • দৃষ্টিহীনতা দমাতে পারেনি রফিকুলকে

    কুড়িগ্রামের রফিকুল ইসলাম দৃষ্টি প্রতিবন্ধী হয়েও তার ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর আবর্জনা রিসাইকেল করে তিনি নিত্য ব্যবহারের জিনিস তৈরি করে বাজারজাত করছেন।