খবরাখবর

অভিজিৎ সাহা (১৭), ঝিনাইদহ

Published: 2017-04-01 20:12:51.0 BdST Updated: 2017-04-01 20:12:51.0 BdST

ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলায় কৃমিনাশক টিকা খাওয়ার পর প্রায় চার শতাধিক শিশু অসুস্থ হয়ে পড়েছে।

শনিবার সকালে শৈলকুপার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কৃমিনাশক টিকা খাওয়ার পর শিশুরা অসুস্থ হয়ে পড়ে বলে জানান উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা খন্দকার বাবর।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা বলেন, “প্রথমে অচিন্তপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা শৈলকুপা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়। এরপর একে একে ঝাওদিয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়, কাতলাগাড়ি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, শৈলকুপা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন কেন্দ্রের অসুস্থ শিক্ষার্থীরা চিকিৎসা কেন্দ্রে আসে।”

দহখোলা মাদ্রাসার ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র আজিজুল হকের মা হ্যালোকে বলেন, "ঔষধ খাবার পর মাথা ঘোরা শুরু হয়। তারপর সারা শরীর জ্বালাপোড়া করছে, বলতে বলতে অজ্ঞান হয়ে যায়। এরপর আমরা ওকে হাসপাতালে নিয়ে আসি।"

দেবতলা প্রাইমারি স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণির অসুস্থ শিক্ষার্থী আব্দুল নিহাদের মা জানান, ওষুধ খেয়ে পেটে ব্যথা হওয়ার কথা বলে তার মেয়ে। এরপর সে অজ্ঞান হয়ে যায়।

শৈলকুপা পাইলট স্কুলের সহকারী শিক্ষক মাজেদুল ইসলাম হ্যালোকে বলেন, "বরাদ্দকৃত টিকা ক্লাসে খাওয়ানোর পরে ছাত্ররা অসুস্থ হয়ে পড়ে। এরপর তাদের নিয়ে হাসপাতালে আসি। এখন অনেকেই সুস্থ।"

বিকাল ৫টা পর্যন্ত ১৮১জন শিক্ষার্থী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিচ্ছিল, আর অন্যরা চিকিৎসা নিয়ে হাসপাতাল ছেড়ে গেছে বলে জানান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা বাবর।

কর্মরত সিভিল সার্জন রাশেদা সুলতানা বলেন, “ব্যাপারটি তেমন গুরুতর নয়। আতঙ্কিত  হবার ফলে তারা আরও অসুস্থ হয়ে পড়ছে। সুস্থ না হওয়া পর্যন্ত তাদের যথাযথ চিকিৎসা চলবে।"

Print Friendly and PDF

সর্বাধিক পঠিত
  • আনুমানিক দুইশ বছরের পুরনো আমগাছ

    ঠাকুরগাঁও জেলায় প্রায় দুই বিঘা জুড়ে আছে একটি আমগাছ। দেখলে মনে হয় বিরাট এক আম বাগান। কিন্তু অবিশ্বাস্য হলেও সত্য, এই মহীরূহের বয়স আনুমানিক দুইশ বছরের কম নয়।

  • ধিক্কার: বঙ্গবন্ধু হত্যার খবরকে অবহেলা করেছিল যারা

    শুধু রাজনীতি নয়, সংবাদপত্রের কাজের সঙ্গেও বঙ্গবন্ধুর সম্পৃক্ততা ছিলো। জীবনের কর্মযজ্ঞে কখনও পত্রিকার মালিক, কখনও সাংবাদিক, কখনও পূর্ব পাকিস্তান প্রতিনিধি, কখনও বা পরিবেশক ছিলেন তিনি। দরকারে হকারিও করেছেন।

  • দৃষ্টিহীনতা দমাতে পারেনি রফিকুলকে

    কুড়িগ্রামের রফিকুল ইসলাম দৃষ্টি প্রতিবন্ধী হয়েও তার ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর আবর্জনা রিসাইকেল করে তিনি নিত্য ব্যবহারের জিনিস তৈরি করে বাজারজাত করছেন।