খবরাখবর

আমিনুর রহমান হৃদয় (১৭), ঠাকুরগাঁও

Published: 2017-01-21 19:40:38.0 BdST Updated: 2017-01-21 19:40:38.0 BdST

ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলায় সরকারি বিধিমালা না মেনেই পরিচালিত হচ্ছে করাত কল।

করাত কল বিধিমালা ২০১২ তে বলা আছে, কোন সরকারি অফিস-আদালত, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল, স্বাস্থ্যকেন্দ্র, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান, বিনোদন পার্ক, উদ্যান এবং জনস্বাস্থ্য বা পরিবেশের জন্য সমস্যার সৃষ্টি করে এমন স্থান থেকে কমপক্ষে ২০০ মিটার এবং সরকারি বন ভূমির সীমানা হতে কমপক্ষে ১০কিলোমিটারের মধ্যে করাত কল স্থাপন করা যাবে না।

সরেজমিনে দেখা যায়, পীরগঞ্জ পৌর ভবনের সামনে এবং ফানসিটি শিশুপার্ক পাশে উঠেছে দুইটি করাত কল।

এছাড়া উপজেলার  গুয়াগাঁও মাদ্রাসার পাশে চারটি করাত কল এবং সাগুনী শালবনের তিন কিলোমিটারের মধ্যে পীরগঞ্জ কলেজ বাজারের নেতার মোড় এলাকায় রয়েছে একটি করাত কল।

মুনসুর আহমেদ নামে এক পথচারী বলেন, "পার্কে শিশুরা খেলাধুলা করে। কাঠের গুঁড়া বাতাসের সঙ্গে শিশুদের নাকে ঢুকে যায়, চোখেও যায়।"

করাত কলগুলো শহরের বাইরে স্থাপন করার দাবি জানান তিনি।

স্থানীয় নাহিদ পারভেজ সাগর বলেন, করাত কল মালিকরা রাস্তার পাশে গাছের গুঁড়ি ফেলে রাখার কারণে অনেক সময় দুর্ঘটনা ঘটছে।

এ বিষয়ে পীরগঞ্জ উপজেলা বন কর্মকর্তা আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, "পীরগঞ্জ উপজেলায় ২৮টি করাত কল রয়েছে। এর মধ্যে ১১টি করাত কলের লাইসেন্স আছে। বাকিগুলোকে লাইসেন্স করার জন্য নোটিস দেওয়া হয়েছে। নানা অজুহাত দেখিয়ে তারা করাত কল পরিচালনা করছেন।"

পীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবিএম ইফতেখারুল ইসলাম খন্দকার বলেন, "করাত কলগুলোকে আমরা নজরদারিতে রেখেছি। সরকারি বিধিমালা না মেনে কল স্থাপন করলে প্রয়োজনে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে।"

Print Friendly and PDF

সর্বাধিক পঠিত