কথায় কথায়

শেখ শরফুদ্দিন রেজা, গাজী শাহরিন মোস্তাফিজ শাহন (১৬), ঢাকা

Published: 2016-09-10 22:10:20.0 BdST Updated: 2016-09-10 22:11:01.0 BdST

দক্ষিন এশিয়ার একটি কুইজ অনুষ্ঠানের আয়োজক হিসেবে সম্প্রতি বাংলাদেশে এসেছিলেন নেপালের শুভেচ্ছাদূত রাজেশ হামাল।

এই সফরে এলে হ্যালোর সাথে কথা হয় তা

রাজেশের জন্ম নেপালের তানসেনে। অভিনয় ছাড়াও তিনি নারী ও শিশু অধিকার বিষয়ে নেপালের শুভেচ্ছাদূত হিসেবে কাজ করেন। ২০১৫ সালের ভূমিকম্পে বিধ্বস্ত নেপালকে পরিবেশগতভাবে নিরাপদ টেকসই করতে তার অগ্রণী ভুমিকা ছিল। 

হ্যালো- বাংলাদেশে এসে কেমন লাগছে?

রাজেশ হামাল- আমি ঢাকা ভালবাসি। শুনেছি, আগের তুলনায় গত দশ বছরে এ শহর অনেক উন্নত হয়েছে। যদিও এদেশে এটা আমার প্রথম সফর কিন্তু আমার বোন ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাশ করে। তাই ঢাকার সাথে আমার একটা পারিবারিক সম্পর্ক রয়েছে।

হ্যালো- অভিনয় নয়, দক্ষিন এশিয়ার একটি কুইজ অনুষ্ঠানের আয়োজক হিসেবে এসে কেমন লাগছে?

রাজেশ হামাল- শিক্ষা সম্পর্কিত অনুষ্ঠানে এসে আমার খুব ভালো লাগছে। এদেশের শিক্ষার্থীরা ভাল। শেষ ধাপগুলোতে অংশ নিতে বাংলাদেশ অডিশনের বিজয়ীরা যাবে নেপালে। এজন্যে আমাকে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। কারণ শেষ ধাপে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলো থেকে অনেক শিক্ষার্থী অংশ নেবে। তারপরেও এটা অনেক সুন্দর অভিজ্ঞতা।

হ্যালো- অভিনয় ছাড়া দুই দেশকে নিয়ে কোনো কাজ করার পরিকল্পনা আছে কি?

রাজেশ হামাল- ভূমিকম্পের পর বাংলাদেশি পর্যটক ও সেদেশে পড়ছে এমন ছাত্রদের ভূমিকা ছিল ইতিবাচক। দুই দেশের সম্পর্কও ভালো। ভবিষ্যতে দুই দেশকে একসঙ্গে নিয়ে অনেক কাজ করতে চাই। 

হ্যালো- বাংলাদেশের সিনেমা কিংবা অভিনয় জগতের সঙ্গে কাজ করার কোন পরিকল্পনা আছে?

রাজেশ হামাল- আমি একজন অভিনেতা।আমারও এদেশে অভিনয় নিয়ে কাজ করার ইচ্ছা আছে।  

হ্যালো- অভিনয় নিয়ে কাজ করতে, এখন পর্যন্ত বাংলাদেশ থেকে তেমন কোন প্রস্তাব পেয়েছেন কি?

রাজেশ হামাল- আশা করছি এবিষয়ে প্রস্তাব পাব। 

Print Friendly and PDF

সর্বাধিক পঠিত